মেইন ম্যেনু

১টি চিংড়ির ওজন সাড়ে ১০ কেজি, বয়স ৯৫ বছর!

বিশ্বাস করার মত না হলেও ঘটনা কিন্তু তাই। শুনলে অবাক হওয়ারই কথা। একবারে সাড়ে ১০ কেজি ওজনের গলদা চিংড়ি। তবে এক দু’বছরের নয়, গলদা চিংড়িটির বয়স ৯৫ বছর। দেখতে টকটকে কমলা রঙের মত। চিংড়িটি তুলে ধরতে বা উঁচু করতে একজন পূর্ণবয়স্ক মানুষের শরীরের প্রায় পুরো শক্তি ব্যয় করতে হয়।

অবশ্য চিংড়িটিকে ছোটখাটো একটা ডায়নোসরের সঙ্গে তুলনা করেছেন খোদ খামার মালিক স্টিফেন জর্ডান। ৯৫ বছর বয়সী এই চিংড়িটিকে ক্রেতার সামনে প্রদর্শন করতেই তিনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করছেন। চিংড়িটি বিক্রির জন্য মোটেও ভাবছেন না খামার মালিক।

এ খবর দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম সিএনএন।

বলা হয়েছে, টকটকে কমলা রঙের গলদা চিংড়িটির ওজন ২৩ পাউন্ড (১০ কেজি ৪৩২ গ্রাম)। চিংড়িটি ক্রেতার সামনে নড়াচড়া করছেন খামার মালিক। তবে চিংড়িটির ছবি তুলতেই বেশি আগ্রহ ক্রেতার! চিংড়িটির বয়স ও ওজন বিবেচনা করে একে বিক্রি করার চেয়ে ক্রেতার সামনে প্রদর্শন করেই আনন্দ পান স্টিফেন জর্ডান।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবাদমাধ্যম সিএনএন জানিয়েছে, আকর্ষণীয় চিংড়িটিকে বিক্রি বা রান্না না করে এর জীবন বাঁচিয়ে দিয়েছে এক সামুদ্রিক খাবার বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান। বিক্রি করার সুযোগ থাকা সত্ত্বেও চিংড়িটিকে লং আইল্যান্ড অ্যাকুরিয়ামে দান করে দেয়া হয়েছে।

নিউইয়র্কের আইল্যান্ড পার্কের জর্ডান গলদা চিংড়ির খামারের মালিক স্টিফেন জর্ডান। তিনি বলেছেন, চিংড়িটি দেখতে একটি ছোটখাটো ডাইনোসরের মতো। তার দোকানে আসা ক্রেতারা চিংড়িটির সঙ্গে ছবি তুলতেই বেশি পছন্দ করে।

জর্ডানের খামারে চিংড়িটির সঙ্গে ছবি তোলা ক্রেতা ব্রিটনি বেইগেল বলেন, এ ধরনের গলদা চিংড়ির কথা অনেক শুনেছি। কিন্তু কখনো বাস্তবে দেখিনি। কাছ থেকে দেখা এটা আমার জন্য এক বিরাট পাওয়া।