মেইন ম্যেনু

“১০ বছর হলো বিয়ে হয়েছে, আমার প্রতি স্বামীর কোন আগ্রহ নেই…”

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন জানিয়েছেন নিজের সমস্যার কথা।

“আমার বিয়ে হয়েছে ১০ বছর। শুরুর দিকে আমাদের লাইফে কোন সমস্যা ছিলো না। প্রায় ৪ বছর ধরে আমাদের খুবই ঝগড়া হয়। এতদিন কেউ জানতো না, কিন্তু এখন আমার পরিবার জানে। ঝগড়ার মূল কারণ হলো ও বৃহস্পতি আর শুক্রবার রাত করে বাসায় ফিরে এবং রাগ হলে আমার গায়ে হাত তুলে।

আমার দুই বাচ্চা। আমি কী করবো বুঝিনা। আমার পরিবারের সবাই ওকে খুব ভালো জানে। আমার বিয়ে হয়েছে দশম শ্রেনীতে পড়ার সময় আর এখন আমি মাস্টার্স পড়ছি। বিয়ের পর থেকে সে আমার পড়াশোনার খরচ দিচ্ছে। আমি নিজেও কনফিউজড কেন সে এমন করে।

রাগ হলেই বলে, তোমার কী সমস্যা? খাও-দাও, ঘুমাও। আমি কী করি তা জানা লাগবেনা। আবার বলে পছন্দ না হলে চলে যেতে। আমি কী করতে পারি? বাচ্চাদের কথা ভেবে ওকে ছাড়তে পারিনা। আমি ওকে ভালোবাসি। ১০ বছরের সংসার ভাঙা কি এত সহজ?

ইদানিং সে চেঞ্জ হয়ে এগছে। আর একটা কথা, ওর কোন বাজে নেশা নেই। সে এ-ও বলে আমি কি কোন খারাপ কাজ করি, বাজে নেশা করি? তোমার সমস্যা কি রাতে দেরী করে বাসায় ফিরলে? ও আমার সাথে খুব কম কথা বলে আর কিছুই শেয়ার করেনা। আর কিছু বললেই ঝগড়া হয়, তাই চুপ থাকি।

আমি ওর এমন আচরণ মেনে নিতে পারছিনা। কী করতে পারি? অনেকবার বুঝিয়ে কথা বলতে চেয়েছি কিন্তু তার আগ্রহ নেই।”

পরামর্শ:
আপু, আমার মনে হচ্ছে আপনার বুঝতে কথাও ভুল হচ্ছে। কিছু একটা আছে, যা আপনি ধরতে পারছেন না। ১০ বছরের সংসার, স্বামী কেমন মানুষ নিশ্চয়ই ভালো করে জানেন। সেই মানুষটি এমন মারাত্মক ভাবে বদলে গিয়েছে, সেটা মোটেও কোন ভালো লক্ষণ নয়। আপ্নাই যেভাবে লিখেছেন, সেগুলো সত্যি হয়ে থাকলে আপনার সংসারের অবস্থা খুবই নাজুক।

সপ্তাহে দুটি দিন রাতে তিনি দেরি করে বাসায় ফিরছেন, আপনার সাথে তাঁর ক্রমাগত সমস্যা হচ্ছে, আপনার প্রতি তিনি মনযোগী নন, এই সব কিছুই ইঙ্গিত করে যে তিনি এমন কিছুতে জড়িয়ে গেছেন যা আপনার চাইতে বেশি ইন্টারেস্টিং। একটা বিষয় এমন হতে পারে যে এই দিনগুলোতে তিনি বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিতে যান। কিন্তু আড্ডা দিতে গেলে আপনার সাথে আচরণ কেন বদলে যাবে? আচরণ বদলে যাওয়ার একটাই অর্থ, তিনি আপনার কাছ থেকে কিছু লুকাতে চাইছেন। হয় তিনি বন্ধুদের সাথে নেশা করেন বা ড্রিঙ্ক করেন বা ক্লাবে যান। কিংবা কোন নারীর সাথে জড়িয়ে গিয়েছেন সম্পর্কে। যেহেতু আপনি বলছেন যে তিনি নেশা করেন না, তাহলে এটা হবার সম্ভাবনা প্রবল যে আপনার স্বামী অন্য কারো সাথে সম্পর্কে আছেন। ব্যাপারটি দীর্ঘদিন যাবত চলছে বলেই আমার সন্দেহ আরও একটু বেশী হচ্ছে।

যাই হোক আপু, আপনাকে প্রথমেই জানতে হবে যে স্বামী এই দিনগুলোতে কই যান ও কী করেন। যেহেতু আপনি তাঁকে ভালোবাসেন এবং তাঁর সাথেই থাকতে চান, তাই আপাতত কোন রকম ঝগড়াঝাঁটির মাঝে যাবেন না। খুব গোপনে ও সাবধানে বিষয়টি জানার চেষ্টা করুন। ব্যাপার যাই হোক, একটু খেয়াল করলেই জানতে পারবেন। তাঁর অফিস,মোবাইল ফোন, বন্ধু বান্ধব, ফেসবুক আইডি ইত্যাদি অনেক কিছুর মাধ্যমেই জানার উপায় আছে। আর কিছু না পারলে লোক লাগিয়ে দেখতে পারেন যে আসলে স্বামী কোথায় যাচ্ছে ও কী করছে। এটা জানাটা জরুরী, কারণ সত্য না জেনে অ্যাকশন নিলে সম্পর্কটি ভেঙে যেতে সময় লাগবে না। সে যেহেতু আপনাকে প্রায়ই চলে যেতে বলে, আমার মনে হচ্ছে এখানে অন্য নারীর ব্যাপারই আছে। সেও হয়তো দুই সন্তানের কারণে সংসার ভাঙছে না। আপনি নিজ থেকে সরে গেলে তাঁর অনেকটাই সুবিধা হয়ে যাবে।

যতই সবাই তাঁকে ভালো জানুক না কেন, যদি গুরুতর কোন সমস্যা পান, তাহলে পারিবারিক ভাবেই সমস্যার সমাধান করতে হবে। বন্ধুদের সাথে মদ-জুয়া-ক্লাবিং ইত্যাদির অভ্যাস ধরে থাকলে সেটা পারিবারিক শাসনের মাধ্যমে সমাধান করা সম্ভব। কিছুদিন সমস্যা হলেও পরে ঠিক হয়ে যাবে। আর যদি পরকীয়ার সমস্যা হয়ে থাকে, তাহলে তা কতটা গভীর ও কোন পর্যায়ে চলে গেছে সেগুলো পর্যবেক্ষণ করে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আপনাকেই।প্রিয়.কম