মেইন ম্যেনু

১৩ দিন ধরে নিখোঁজ মাদরাসা শিক্ষার্থী, শিক্ষকের বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ

সরকার দুলাল মাহবুব, রাজশাহী থেকে: রাজশাহীর মোহনপুর উপজেলার হাটরা দাখিল মাদরাসার শিক্ষকের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে অপহরনের অভিযোগ উঠেছে। এ বিষয়ে মাদ্রাসা ১০ম শ্রেণী পড়ুয়া শিক্ষার্থীর পিতা বাদী হয়ে মোহনপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানাগেছে, উপজেলার রায়ঘাট ইউনিয়নে চক-আলম গ্রামের মজিবর রহমানের মেয়ে ১০ম শ্রেণীর ছাত্রীকে (১৫) বাগমারা উপজেলার কানাইশহর গ্রামের মৃত আব্দুল আজিজের ছেলে ও হাটরা দাখিল মাদসার বিএসসি শিক্ষক আব্দুর রাজ্জার (৩৫) এর কু-নজর পড়ে। ওই শিক্ষার্থীকে বিবাহের প্রস্তাব দেয় শিক্ষক আব্দুর রাজ্জাক।

বিভিন্ন ভাবে কু-প্রস্তাব ও বিবাহে রাজী না হইলে জোর করে উঠাইয়া নিয়ে বিবাহ করবে বলে হুমকি প্রদর্শন করে। শিক্ষার্থী বিষয়টি তার পিতা মাতাকে জানালে শিক্ষার্থীর মা হাটরা দাখিল মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির কাছে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। ম্যানেজিং কমিটির সভায় অভিযুক্ত শিক্ষককে কেন সাময়িক বরখাস্ত করা হবে না এবং তাকে সংশোধন হওয়ার জন্য কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রেরণ করা হয়।

ম্যানেজিং কমিটির কাছে শিক্ষকের বিরদ্ধে অভিযোগ দেওয়ার কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে অভিযুক্ত শিক্ষক। তখন শিক্ষক আঃ রাজ্জাক লালইচ গ্রামের আঃ রশিদের ছেলে আবুল হাসান তার স্ত্রী বিলকিস বানু এবং কানাইশহর গ্রামের সোহরাব হোসেনের সহযোগিতায় আব্দুর রাজ্জাক গত ৭ আগষ্ট সন্ধ্যা আনুমানিক সাড়ে ৭ টার দিকে মজিবর রহমানের মেয়েকে অপহরন করে নিয়ে যায়।

নাম প্রকাশ না করা শর্তে, তার সহকর্মীসহ একাধিক ব্যক্তি জানান, ইতিপূর্বে তার ৩ টি স্ত্রী ছিল এবং বিভিন্ন প্রলোভন দিয়ে একাধিক মেয়ে জীবন নষ্ঠ করেছেন। তাই এলাকাবাসী লম্পট শিক্ষক আঃ রাজ্জাকের চাকুরী থেকে বহিস্কারসহ বিচার দাবী করেন।

এ বিষয়ে হাটরা দাখিল মাদরাসার ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি রমজান আলী জানান, পলাতক শিক্ষক আঃ রাজ্জাক (বিএসসি) বিরুদ্ধে সরকারি বিধি-মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহন করে অনুলিপি উর্দ্ধতন কর্মকর্তা প্রেরণ করা হয়েছে এবং মোহনপুর থানায় সাধারন ডায়রী করা হয়।

মোহনপুর থানার অফিসার ইনর্চাজ(ওসি) এস .এম মাসুদ পারভেজ সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, শিক্ষার্থীকে উদ্ধারসহ আসামীদের গ্রেফতার অভিযান অব্যহত রয়েছে।