মেইন ম্যেনু

১৪ মামলায় হাইকোর্ট থেকে আমানের জামিন

গাড়ী পোড়ানো ও নাশকতার অভিযোগে দায়ের করা আরো ১৪ মামলায় হাইকোর্ট থেকে জামিন পেলেন বিএনপির যুগ্মমহাসচিব ও সাবেক মন্ত্রী আমান উল্লাহ আমান। এ নিয়ে তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মোট ৬৯ মামলায় মধ্যে ৪০টিতে জামিন পেলেন এই বিএনপি নেতা।

চলতি বছরের শুরুতে সরকার বিরোধী আন্দোলনের সময় গাড়ি পোড়ানো ও নাশকতার অভিযোগ এনে রাজধানীর মোহাম্মাদপুর, পল্টন ও মতিঝিল থানায় এ মামলাগুলো দায়েল করে পুলিশ। ওই মামলায় আবেদন করলে শুনানী শেষে তাকে জামিন দেন হাইকোর্ট।

হাইকোর্টের দুইটি বেঞ্চে আলাদা আলাদা ভাবে এ সকল মামলার শুনানী করে আমানুল্লাহ আমানকে জামিন দেয়া হয়।বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও বিচারপতি মো. খসরুজ্জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ ৭ মামলা ও বিচারপতি একেএম আব্দুল হাকিম ও বিচারপতি আশীষ রঞ্জন দাসের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ ৭ মামলায়র জামিন আবেদন শুনানি করে সোমবার এ আদেশ দেন।

এগুলোর মধ্যে ৭ মামলায় ছয় মাসের ও ৭ মামলায় হাইকোর্টের রুল নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত এ জামিনের মেয়াদ থাকবে বলে জানিয়েছেন আইনজীবী সগীর হোসেন লিওন। আজ আদালতে আমানের পক্ষে শুনানি করেন সুপ্রিমকোর্ট বারের সাবেক সভাপতি ও সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। তাকে সহযোগিতা করেন অ্যাডভোকেট সগীর হোসেন লিওন।

জামিনের বিরোধিতা করে আদালতে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ফজলুর রহমান খান ও ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল আব্দুল হাই।

জানতে চাইলে আমানের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সগীর হোসেন লিওন, চলতি বছরের জানুয়ারিতে হরতাল-অবরোধ চলাকালে নাশকতার অভিযোগ এনে আমানের বিরুদ্ধে রাজধানীর তিন থানায় এ মামলাগুলো দায়ের করে পুলিশ।

তিনি বলেন, যে সকল মামলায় আমান উল্লাহ আমানকে আসামী করা হয়েছে সে গুলোতে তার বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট কোনো অভিযোগ নেই। তিনি অসুস্থ্য, তাকে রাজনৈতিকভাবে এ সকল মামলায় আসামী করা হয়েছে মর্মে আদালতে যুক্তি তুলে ধরা হলে এসকল বিষয় বিবেচনায় নিয়ে আদালত তাকে জামিন দেন।

আমান বর্তমানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছেন।