মেইন ম্যেনু

১৭বছর বয়সেই নাসার গবেষক, পাইলট, লেখক!

বয়স সবে ১৭। এরমধ্যেই দু’টি স্নাতক ডিগ্রি নিয়েছেন, স্নাতকোত্তর চলছে। কাজ করছেন নাসায়। মার্শাল আর্টেও তুখোড় এই তরুণ। পুরস্কারও আছে অনেক। চালাতে পারে বিমানও। অবাক হচ্ছেনতো? অবাক হবার পালা আরো বাকি আছে। এর মধ্যে তার লেখা দুটি বইও প্রকাশ হয়েছে। এই প্রতিভাধর তরুণ ক্যালিফোর্নিয়ার স্যান গ্যাব্রিয়েলের বাসিন্দা। নাম মোশে কাই কাভালিন।

বিমান নিয়ে সে আকাশে উড়তে পারে। কিন্তু, সত্যটা হল, একা গাড়ি চালানোর আইনি ছাড়পত্র এখনও পায়নি, বয়স ১৮ হয়নি বলেই। প্রথম ডিগ্রিটা পেয়েছিলেন মাত্র ১১ বছর বয়সে, কমিউনিটি কলেজ থেকে। তার ঠিক চার বছরের মাথায় ক্যালিফোর্নিয়া ইউনিভার্সিটি থেকে আবারও স্নাতক, এবার অঙ্কে। এখন অনলাইনে ব্র্যান্ডেইস বিশ্ববিদ্যালয়ে সাইবার সিকিওরিটি বিষয়ে স্নাতকোত্তর পড়ছেন। বিমান ও ড্রোনের নজরদারি প্রযুক্তির উদ্ভাবনে নাসাকে সাহায্য করার জন্যই ডাক পড়েছে কাভালিনের।

এত গুণের অধিকারী হলেও, আর পাঁচজন সাধারণের মতোই নিজেকে মনে করে এই তরুণ। নাসার ফ্লাইট রিসার্চ সেন্টারে গবেষণারত এই তরুণের কথায়, ‘আমি বিশেষ কিছুই করিনি। যা করেছি, যেটুকু করেছি, সেই কৃতিত্বও মা-বাবার। প্রেরণা, অনুপ্রেরণা- সবটাই তাদের কাছ থেকে পাওয়া। আমি শুধু চেষ্টা করেছি, সবসময় আমার সেরাটা দিতে।’

মা জন্মসূত্রে তাইওয়ানের নাগরিক, বাবা ব্রাজিলিয়ান। তারাও মনে করেন, সন্তান জিনিয়াস কিছু নয়। সবটাই তার মধ্যে এসেছে স্বাভাবিকভাবে। তার একসময়কার অঙ্কের শিক্ষক ড্যানিয়েল জজের কথায়, ও খুব পরিশ্রম করতে পারে। কাউকে ওর মতো পরিশ্রম করতে দেখিনি।

বহুগুণের অধিকারী এ তরুণ ভবিষ্যতে জ্যোতিঃপদার্থবিজ্ঞানী হতে চায়। আর সেভাবেই নিজেকে গড়ে তুলছে সে।