মেইন ম্যেনু

১৮ তে সাবালক, ২১-এ বিয়ে, কি হবে মাঝের ৩ বছর?

১৮তে সাবালক, ২১-এ বিয়ে, মাঝের ৩ বছর কি হবে বিয়ে না করা যুবকদের? ভারতীয় তরুণের জন্য রাষ্ট্র-প্রদত্ত অনুশীলন কীভাবে চলতে পারে?

সত্য সেলুকাস! কী বিচিত্র এ দেশ! আইন বলে ১৮তে পুরুষ সাবালক। কিন্তু ওই আইনই বলছে, ১৮তে ভারতীয় পুরুষ ততখানি সাবালক নয় যে, সে বিয়ে করতে পারে।

বিয়ে করতে গেলে তাকে অপেক্ষা করতে হবে বয়স ২১ না হওয়া পর্যন্ত। ১৮ থেকে ২১— এ তিন বছর সে কী করবে, এ বিষয়ে কোনো আইনি নির্দেশিকা নেই কোত্থাও।

সমস্যা, মহা সমস্যা। আইনকর্তারা কি একবারও ভেবে দেখেছিলেন? মানুষের এই সামান্য আয়ুতে তিন-তিনটে বছর কি কম সময়?

সেই প্রমত্ত যৌবনে তিনটে বছর ধাঁ হয়ে যাওয়া কি কোনো কাজের কথা? এ কথা কেউ ভাবে না। অথচ মেয়েদের দেখুন। তাদের জন্য ১৮-তেই ভোটাধিকার আর ১৮-তেই বিয়ে।

পুরুষ বয়ঃপ্রাপ্তির একমাত্র সিম্পটম ভোটাধিকার। তাতে ব্যক্তিগত কোনো লাভ নেই। রাষ্ট্রযন্ত্রই তার মজাটা লুটে। তলিয়ে দেখলে মনে হতে বাধ্য, ১৮-এর তরুণরা যেন বলির পাঁঠা!

অন্য কোনো উপযোগ অন্তত রাষ্ট্রের চোখে, তাদের নেই। ১৮তে ভোট দিয়ে ‘সাবালক’ হয়ে ২১-এ বিয়ে করতে পার। কিন্তু রাষ্ট্র-নির্দেশের ওপেনে-গোপেনে কোত্থাও বলা নেই ১৮ থেকে ২১-এর ফাঁকে লটকে থাকা তিন বছরের শূন্যতা সাবালকত্ব নিয়ে সে কী করবে?

২১-এ বিয়ের পারমিশন মানে তো ঠিক ‘বিয়ে’ নয়, যৌবনের পারমিশন মাত্র। রাষ্ট্রযন্ত্রও ভালোমতোই জানে, ২১ বছরে বেশির ভাগ ভারতীয় বিয়ে করে না।

কিন্তু তিন-তিনটে বছর বেমালুম ধাঁ হয়েই থাকবে ভারতীয় পুরুষরা? এর উত্তর জানা না থাকলেও রাষ্ট্রযন্ত্রই যে ঠিক করে দিয়েছে।