মেইন ম্যেনু

১৯ বছর বয়সেই ৩ কন্যার মা হয়েছেন এই যুবক!

১৯ বছরের যুবক হেনরি স্টেইন হয়েছেন ৩ কন্যাসন্তানের মা ! শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হলেও এমনটাই ঘটেছে উত্তর আইসল্যান্ডের আর্সকগস্যাডুর অঞ্চলে। বর্তমানে ওই কন্যাসন্তানকে লালনপালন করতে ব্যস্ত রয়েছেন স্টেইন ও তার সঙ্গী থরির লিও পিটারসন।

তবে যুবক স্টেইনের সন্তান জন্ম দেওয়ার পেছনে লুকিয়ে রয়েছে অন্য সত্য। ২০১৪ সালেও স্টেইন ছিলেন একজন তরুণী।

কিন্তু ওই বছরের অক্টোবরে স্টেইন সিদ্ধান্ত নেন তিনি লিঙ্গ পরিবর্তন করবেন হরমোন চিকিৎসা এবং সার্জারির মাধ্যমে। প্রথমে স্টেইন তার বাবা-মাকে তার সিদ্ধান্তের কথা জানান। এ সময় মা তাকে স্বাগত জানালেও বাবা তাকে পুরোপুরি সমর্থন দিতে পারছিলেন না। তবু স্টেইন তার সিদ্ধান্তে অটল ছিলেন।

সর্বশেষ গত বছরের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত স্টেইন তার সঙ্গী পিটারসনের সঙ্গে ছিলেন। এর পর থেকেই তিনি লিঙ্গ পরিবর্তন করে একজন পুরুষ হওয়ার জন্য সার্জারি করেন এবং হরমোন চিকিৎসা শুরু করেন। এরই মধ্যে তিনি একজন পুরুষ হিসেবে জীবনযাপন শুরু করেছিলেন। কিন্তু চিকিৎসা শুরুর দুই মাসের মধ্যেই স্টেইন জানতে পারেন তিনি অন্তঃসত্ত্বা।

যদিও স্টেইনের সন্তান ধারণের কোনো পরিকল্পনা ছিল না, তবু তার তার অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার খবরে তিনি খুশিই হন। কারণ তখন স্টেইন মনে করেন ওটাই ছিল তার সন্তান ধারণের ও তার সঙ্গীর সঙ্গে জীবনযাপনের উপযুক্ত সময়। এরপর অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে এক কন্যাসন্তানের জন্ম দেন। সন্তান জন্মের পর তাকে বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় স্টেইন হরমোন চিকিৎসা বন্ধ রেখেছিলেন।

স্টেইন জানান, তিনি কখনোই নিজেকে শতভাগ পুরুষ হিসেবে অনুভব করেননি। তবে তার বৈচিত্র্যময় জীবন তিনি উপভোগ করেছেন এবং যত দ্রুত সম্ভব তিনি আবারও লিঙ্গ পরিবর্তনের প্রক্রিয়া শুরু করবেন।

স্টেইন বলেন, তিনি নিজে ও পিটারসন সন্তানের বেড়ে ওঠার ব্যাপারে খুবই সচেতন। তবে সন্তানের প্রথম বছরগুলোতে তারা সন্তানের লিঙ্গ পরিচয় নির্দিষ্ট করে দেবেন না। যখন সে বড় হবে তখন সে নিজেই ঠিক করবে সে কী পরবে, কেমন চলাফেরা করবে এবং সে কোন লিঙ্গ পরিচয় বেছে নেবে।