মেইন ম্যেনু

১ লক্ষ বছর পরে কেমন দেখতে হবে মানুষকে? বিজ্ঞানীরা প্রকাশ করলেন সেই ছবি

বিবর্তনবাদের কথা সকলেরই জানা। পৃথিবীতে মানবপ্রজাতির সৃষ্টির পর থেকে সম‌য়ের সঙ্গে সঙ্গে বদলেছে মানুষের চেহারা। অনেক পরিবর্তন এসেছে মানুষের শরীরে। এমনকী শরীরের অনেক অঙ্গ একেবারে অপ্রয়োজনীয় হয়ে গিয়েছে। যেম‌ন, বর্তমানে মানবশরীরে অ্যাপেনডিক্স নামের অঙ্গটির কোনও কাজই নেই।

মানবশরীরের এই বিবর্তনের সঙ্গে পৃথিবীর আবহাওয়ার পরিবর্তনেরও ঘনিষ্ঠ যোগ রয়েছে। গত ২ লক্ষ থেকে ৮ লক্ষ বছরের মধ্যে আমাদের মস্তিস্ক এবং মুখের আকৃতিতে লক্ষণীয় পরিবর্তন এসেছে। এই সময়ের মধ্যে মানবমস্তিস্ক আকারে প্রায় ৩ গুণ বৃদ্ধি পেয়েছে। যার ফলে আমাদের মুখের সামনের অংশটি সমতল হয়ে গিয়েছে।

বিবর্তন তত্ত্ব অনুসারে, মানবশরীরের বিবর্তন এখনও অব্যাহত রয়েছে। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে এখনও বদলাচ্ছে মানবশরীর এবং মানুষের মুখাবয়ব। এই বিবর্তনের ধারার সঙ্গে তাল মিলিয়ে বিজ্ঞানীরা আঁচ করার চেষ্টা করছেন ভবিষ্যতে কেমন দেখতে হবে মানুষকে।

শিল্পী ও গ্রাফিক আর্টিস্ট নিকোলায় লামকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছিল, কমপিউটেশনাল জেনেটিকস-এর সাহায্যে আজ থেকে ১ লক্ষ বছর পরে কেমন দেখতে হবে মানুষকে, তার একটি নকশা তৈরি করতে।

লামের বক্তব্য, জায়গোটিক জেনোম ইঞ্জিনিয়ারিং টেকনোলজির সাহায্যে নির্ধারণ করা সম্ভব, কেমন হবে আজ থেকে ১ লক্ষ বছর পরে মানুষের মুখাবয়ব। উপরের ছবিটি, বর্তমান সময়ের মানব-মানবীর মুখ। এবার আসুন দেখে নেওয়া যাক, ১ লক্ষ বছর পরে কেমন হবে এদের চেহারা।

image (3)

এই হল সেই মুখ। লাম বলছেন, আগামী ২০ হাজার বছরের মধ্যেই বৃহত্তর মস্তিস্কের কারণে মানুষের মাথার আকৃতি বাড়তে শুরু করবে। ১ লক্ষ বছর পরে মানুষের মুখে লক্ষণীয় পরিবর্তন আসবে। মানুষের মাথার খুলি অনেকটা বৃদ্ধি পাবে। পাশাপাশি বড় হবে চোখ। পৃথিবীর মাটি স্পর্শ করা সূর্যের আল্ট্রা ভায়োলেট রশ্মির মাত্রা অনেক গুণে বেড়ে যাবে ততদিনে। ফলে মানুষের মুখে একটু কালচে দেখাবে। তাছাড়া মানুষের নাসারন্ধ্রও স্ফীত হবে। তার ফলে নিঃশ্বাসে সুবিধা হবে মানুষের। এই মুখশ্রীকে কি সুন্দর বলা যাবে? হয়তো যাবে। কারণ ১ লক্ষ বছরে মানুষের চেহারার সঙ্গে সঙ্গে তার সৌন্দর্যবোধও তো বদলাবে।