মেইন ম্যেনু

২০০ কোটি ডলার নমনীয় ঋণ দিচ্ছে ভারত

৭৫ শতাংশ পণ্য আমদানির শর্ত রেখে বাংলাদেশের রেল, বিদ্যুত ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নে আরো ২০০ কোটি ডলার (দুই বিলিয়ন) নমনীয় ঋণ (এলওসি) দিচ্ছে ভারত।

৮০ টাকা বিনিময় হারে বাংলাদেশি মুদ্রায় এ ঋণের পরিমাণ দাঁড়ায় প্রায় ১৬ হাজার কোটি টাকা।

বুধবার বিকেল তিনটায় রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে এনইসি সম্মেলন কক্ষে বাংলাদেশ সরকার এবং ভারতীয় এক্সিম ব্যাংকের মধ্যে দুই বিলিয়ন ডলারের (২০০ কোটি) এই ঋণচুক্তি স্বাক্ষর করা হবে।

বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে অর্থনৈতিক সর্ম্পক বিভাগের (ইআরডি) সিনিয়র সচিব মোহাম্মদ মেজবাহউদ্দিন এবং ভারত সরকারের পক্ষে এক্সিম ব্যাংক অব ইন্ডিয়া’র চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক যদুভেন্দ্র মাথুর চুক্তিতে স্বাক্ষর করবেন।

ইআরডি সূত্র জানিয়েছে, এই এলওসি’র প্রধান শর্ত হচ্ছে, ঋণের টাকায় রেল, বিদ্যুত ও তথ্যপ্রযুক্তি খাতে যে প্রকল্প গ্রহণ করা হবে তাতে অন্তত ৭৫ শতাংশ পণ্য ও সেবা অবশ্যই ভারত থেকে আমদানি করতে হবে।

২০০ কোটি ডলার ব্যয়ে সর্বমোট ২৫ থেকে ৩০টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। এখন বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগ থেকে প্রস্তাবিত প্রকল্প গ্রহণ করা হচ্ছে। পরে যাচাই-বাছাই করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই ঋণে বাস্তবায়ন করার জন্য প্রকল্প চূড়ান্ত করবেন।

২০ বছরের মধ্যে ভারতকে এ ঋণ শোধ করতে হবে। এতে এক শতাংশ হারে সুদ দিতে হবে। তবে প্রথম পাঁচ বছর গ্রেস পিরিয়ড হিসেবে ধরা হয়েছে। এর মধ্যে কোনো কিস্তি পরিশোধ করা লাগবে না।

এর আগে ২০১০ সালের জানুয়ারিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারকে ভারত ১০০ কোটি ডলার ঋণ-সহায়তা দিয়েছিল। এর মধ্যে অনুদান ছিল ২০ কোটি ডলার।