মেইন ম্যেনু

২০০ টাকা চুরির অভিযোগ স্কুলছাত্রীর ‘আত্মহত্যা’

এম.এ আয়াত উল্যা, স্টাফ রিপোর্টার, নোয়াখালী : নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে সহপাঠীদের সামনে টাকা চুরির অভিযোগ ওঠার পর বসতঘর থেকে ফারুমা আক্তার (১০) নামের এক স্কুলছাত্রীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। চিকিৎসক ও পুলিশের ধারণা, শিশুটি আত্মহত্যা করেছে। নিহত ফারুমা চরকাঁকড়া ইউনিয়নের চরকাঁকড়া আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণির ছাত্রী ছিল। তার বাবা সাহাব উদ্দিন পেশায় দিনমজুর। তাঁর ছয় মেয়ের মধ্যে ফারুমা সবার ছোট। সাহাব উদ্দিনের বড় মেয়ে শাহানাজ আক্তার বলেন, সকালে ফারুমা প্রথম সাময়িক পরীক্ষায় অংশ নিতে স্কুলে যায়। পরীক্ষা চলাকালে তাঁদের বাড়ির এক নারী বিদ্যালয়ে গিয়ে শিক্ষকদের কাছে অভিযোগ করেন, ফারুমা তাঁর ঘর থেকে ২০০ টাকা চুরি করেছে। শাহনাজ অভিযোগ করেন, একপর্যায়ে ওই নারী শিক্ষকদের সামনে তাঁর বোনকে মারধর করেন। এরপর ওই নারী তাঁর বোনকে বিদ্যালয় থেকে বাড়িতে নিয়ে আসেন। আসার পথে এবং বাড়িতে এনেও মারধর করা হয়। এরপর বেলা দেড়টার দিকে ঘরের ভেতর ফারুমার লাশ ঝুলতে দেখেন তাঁর বাবা। আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনোয়ারা বেগম বলেন, পরীক্ষা শেষ হওয়ার কিছুক্ষণ আগে এক নারী এসে বলেন, ফারুমা তাঁর ঘর থেকে ২০০ টাকা চুরি করেছে। পরে ওই ছাত্রীর কাছ থেকে ১০০ টাকা উদ্ধার করা হয়। পরীক্ষার পর দুপুর ১২টার দিকে ওই ছাত্রী বাড়ি চলে যায়। পরে বেলা দেড়টার দিকে তাঁরা মৃত্যুর সংবাদ পান। কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ সাজেদুর রহমান বলেন, স্থানীয় লোকজনের কাছ থেকে তথ্য পেয়ে কিছুক্ষণ আগে ফারুমার লাশ উদ্ধার করা হয়। পুলিশ গিয়ে লাশ ঝুলন্ত অবস্থায় পেয়েছে। লাশের গলায় কালো দাগ ছাড়া শরীরের অন্য কোথায়ও কোনো আঘাতের চিহ্ন দেখা যায়নি। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, এটি আত্মহত্যা। পুলিশ জানায়, নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে লাশের ময়নাতদন্ত করা হয়। ময়নাতদন্ত শেষে লাশটি পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ওসি সাজেদুর রহমান বলেন, এ ঘটনায় শিশুটির বাবা থানায় অপমৃত্যুর মামলা করেছেন। নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা (আরএমও) ফরিদ উদ্দিন চৌধুরী বলেন, ময়নাতদন্তের সময় মনে হয়েছে শিশুটি আত্মহত্যা করেছে। এরপরও ভিসেরা পরীক্ষার প্রতিবেদন পেলে এ বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাবে।