মেইন ম্যেনু

২০১৯ থেকেই দ্বিস্তর টেস্ট, কঠিন সমীকরণে বাংলাদেশ!

কদিন আগেই ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) প্রধান নির্বাহী ডেভিড রিচার্ডসন দ্বিস্তর টেস্টের প্রসঙ্গ তুলেছিলেন। এবার তিনিই জানালেন, ২০১৯ সাল থেকেই এই কার্যক্রম চালু করা হবে। এই নিয়মে বাংলাদেশ পড়ছে কঠিন সমীকরণে।

রিচার্ডসনের মতে, টেস্ট ক্রিকেটকে বাঁচিয়ে রাখতেই এমন কিছু করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেছেন, ‘আমরা এখন সবাই বুঝে গেছি, টেস্ট ক্রিকেট নিজে থেকে টিকতে পারবে না। টেস্ট ক্রিকেটকে আরো অর্থবহ করে তুলতে শুধু র‍্যাংকিং আর একটি ট্রফির বাইরে কিছু যোগ করতে না পারলে টেস্ট ক্রিকেট নিয়ে আগ্রহ কমতেই থাকবে। আমরা যদি টেস্ট ক্রিকেট সত্যিই টিকিয়ে রাখতে চাই তাহলে টেস্ট দলের সংখ্যা কমানো যাবে না। আমাদের এমন একটা প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ কাঠামো দাঁড় করাতে হবে যেখানে উত্তরণ ও অবনমন থাকবে, থাকবে ওপরে ওঠার সুযোগও।’

দ্বিস্তর টেস্টের নিয়মে আইসিসি র‍্যাংকিংয়ের প্রথম সাত দল খেলবে প্রথম বিভাগে। বাকি তিনটি দলের সাথে, দ্বিতীয় বিভাগে যোগ দেবে নতুন দুটি দল। প্রতি দুই বছর পরপর প্রত্যেক দল কমপক্ষে একেক জনের সাথে কমপক্ষে তিন ম্যাচের টেস্ট সিরিজ খেলবে।

ফলাফল, পয়েন্ট অনুযায়ী প্রথম বিভাগ থেকে দ্বিতীয় বিভাগে নামবে একটি দল, দ্বিতীয় বিভাগ থেকে প্রথম বিভাগে উঠবে একটি দল।

বাংলাদেশ টেস্টে এখনকার অবস্থানে থাকলে তাদেরকে খেলতে হবে দ্বিতীয় বিভাগে। সঙ্গে রয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও জিম্বাবুয়ে। এমনটা হলে খেলা কমে যাবে বাংলাদেশের। একই সঙ্গে কমবে প্রচার সত্ত্ব থেকে প্রাপ্ত আয়।

তাছাড়া সীমিত ওভারের ম্যাচে সফলতা আসার পর থেকেই সাদা পোশাকের টেস্টে নিজেদেরকে মেলে ধরার চেষ্টা করছে মুশফিকুর রহিমের দল। এমন সময়ে যদি দ্বিস্তর টেস্টের ফাঁদে পড়তে হয় তাহলে র‍্যাংকিংয়ের শীর্ষ দলগুলোর বিপক্ষে টেস্ট খেলা হয়ে উঠবে না। ফলাফল, সংকটে পড়বে বাংলাদেশের ক্রিকেট।