মেইন ম্যেনু

২২শ বছর আগের ‘বাল্মীকির’ সন্ধান

রামায়ণের পাঠকমাত্রই বাল্মীকির সঙ্গে পরিচয় আছে। তিনি আমাদের আদি কবি। আসল নাম দস্যু রত্নাকর। রত্নাকরকে রামনাম জপতে বলেন নারদ মুনি। কিন্তু পাপে জর্জরিত রত্নাকর জিহ্বা এতোটাই আরষ্ট যে, তিনি রামের নাম উচ্চারণই করতে পারলেন না। নারদ তাকে সাধনা করতে বললেন। রত্নাকর ছয় হাজার বছর সাধনা করলেন।

সাধনার এক পর্যায়ে তার সমস্ত শরীর উই পোকায় ভরে গেল। পুরো শরীর পরিণত হল উইয়ের ঢিবিতে। সেই থেকে তার নাম হল বাল্মীকি বা উইয়ের ঢিবি। সাধনা শেষে তিনি রামের জীবনী লেখা শুরু করেন; তাও আবার রামের জন্মের ৬০ বছর আগে।

এবার সত্যিকারের এক ‘বাল্মীকি’ বা উইয়ের ঢিবির সন্ধান পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা। তাও আবার দুই হাজার দুইশ বছরের পুরনো। মধ্য আফ্রিকার প্রজাতন্ত্র কঙ্গোর আপার কাতাঙ্গার লুবুম্বাশির বনাঞ্চলে পুরনো এই উইয়ের ঢিবির সন্ধান পান তারা। এটি এ পর্যন্ত পাওয়া সবচেয়ে পুরনো উই ঢিবির ফসিল। এর আগেও এমন একটি ফসিল পাওয়া গিয়েছিল। তবে সেটির বয়স ছিল সাড়ে সাতশ বছর।

বেলজিয়ামের ঘেন্টাইউনিভার্সিটির গবেষক হান্স আর্নেসের নেতৃত্বে লুবুম্বাশির ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা ১০ মিটার উঁচু ও ১৫ মিটার চওড়া এই উইয়ের ঢিবির সন্ধান পান। রেডিওকার্বন পরীক্ষার মাধ্যমে তারা সিদ্ধান্তে পৌঁছেছেন এটি প্রায় ২২শ বছর পুরনো। যে প্রক্রিয়ায় এই উই ঢিবি গড়ে উঠেছে, বিজ্ঞানের ভাষায় একে বলে কার্বন ১৪ ডেটিং। ঢিবি তৈরির ক্ষেত্রে মাটির মধ্যে থাকা কার্বন ১৪ আইসোটপ ব্যবহার করে উই পোকারা।

তথ্যসূত্র: বিবিসি।



« (পূর্বের সংবাদ)