মেইন ম্যেনু

২৪ হাজার সন্তানের মা তিনি! (ভিডিও)

মহাভারতের গান্ধারী শত পুত্রের জননী হওয়ার বর (আশীর্বাদ) পেয়েছিলেন। হয়েছিলেনও তাই। কিন্তু এক জন্মে কি শত পুত্রের জন্ম দেওয়া সম্ভব? কিন্তু দেবতার বর বলে কথা। তাই গান্ধারীর ক্ষেত্রে বিকল্প ব্যবস্থা ছিল। গান্ধারী জন্ম দিয়েছিলেন শত পুত্রের বীজ। সেখান থেকে পরে তার শত পুত্রের জন্ম হয়।

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের লিনিয়া লাট্টানজিও ২৪ হাজার সন্তানের মা। লিনিয়া অবশ্য ২৪ হাজার সন্তানের জন্মদাতা মা নন। তিনি ২৪ হাজার বিড়াল সন্তানের পালক মা।

মাত্র কয়েকটি বিড়াল ছানা দিয়ে শুরু করেছিলেন লিনিয়া লাট্টানজিও। কিন্তু ২৫ বছর পর ক্যালিফোর্নিয়ার চার হাজার বর্গফুট আয়তনের এই বাড়ি যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় বিড়ালের আশ্রয়কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে।

আনুমানিক ২৪ হাজার বিড়াল এই আশ্রয়কেন্দ্রে থাকে। এখানে যেকোনো সময় এক হাজার বিড়াল প্রজাতির প্রাণী আপনি চাইলে দিতে পারেন।

লিনিয়া জানান, তিনি একসময় দেখেন যে আশপাশে অনেক বিড়ালকে অমানবিকভাবে হত্যা করা হচ্ছে। তখন তিনি এই আশ্রয়কেন্দ্র স্থাপন করেন। তিনি বন্য ও পরিত্যক্ত বিড়ালদের জন্য তার ১২ একর জমিতে নির্মিত একটি বাড়ি ব্যবহার করছেন।

লিনিয়া অবসর গ্রহণের পর পাওয়া সব টাকা এসব পোষা প্রাণীর পেছনে খরচ করেন। এ ছাড়া এ কাজে ব্যয় করার জন্য তিনি যথেষ্ট পরিমাণ সাহায্য পান বিভিন্নজনের কাছ থেকে।

লিনিয়া বলেন, যদি আমার সাহায্যের জন্য মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করতে না হতো, তাহলে আমি বিড়ালগুলোর আরো ভালোভাবে যত্ন নিতে পারতাম। লিনিয়া আরো জানান, বিড়ালের এই বাসা পরিষ্কার করতে ও তাদের খাওয়ানোর জন্য বর্তমানে একদল কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবক রয়েছে। এই আশ্রয়কেন্দ্রে বিড়ালদের স্বাস্থ্য পরীক্ষা, গর্ভাশয় অপসারণ ও নপুংসক করতে পশু চিকিৎসক নিয়োজিত রয়েছে। এসব বিড়ালের জন্য সপ্তাহে এক হাজার খাবারের ক্যান প্রয়োজন হয়।

বিড়াল শিকারিদের হাত থেকে রক্ষার জন্য একধরনের বেড়া তৈরি করা হয়েছে বাড়ির চারদিকে। এ ছাড়া বিড়াল যাতে বাড়ির বাইরে যেতে পারে সে জন্য আলাদা দরজা রয়েছে। সেখানে তারা গাছে চড়তে পারে, বাড়ির বাইরে গিয়ে রোদে বসতে পারে। একটি খাঁচার মধ্যে বসবাসের বিপরীতে তাদের এই বাড়িতে বসবাস করা, কারণ কেউ তাদের নিতে চায় না বলে জানান লিনিয়া।

ভিডিওটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন