মেইন ম্যেনু

২৫ বছরের মধ্যে সর্বনিম্নে চীনের অর্থনীতি

প্রবৃদ্ধির হার গত ২৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ যাচ্ছে বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ চীনে। ২০১৫ সালে দেশটিতে প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৬.৯ শতাংশ, যা গত ২৫ বছরের মধ্যে সবচেয়ে কম।

তার আগের বছর, অর্থাৎ ২০১৪ সালে চীনের প্রবৃদ্ধি ছিল ৭.৩ শতাংশ। এদিকে দেশটির প্রবৃদ্ধির এই নিম্ন অবস্থানের কারণে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীরা।

বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির এই দেশটি ২০১৫ সালের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি নির্ধারণ করেছিল প্রায় ৭ শতাংশ। তবে যতক্ষণ পর্যন্ত নতুন কর্মক্ষেত্র তৈরি না হয় ততক্ষণ পর্যন্ত ধীর গতির এই প্রবৃদ্ধি গ্রহণযোগ্য বলে মন্তব্য করেছেন চীনের প্রধানমন্ত্রী লে কেকিয়াং।

বিশ্লেষকদের মতে, প্রবৃদ্ধি ৬.৮ শতাংশের কম হলে সেক্ষেত্রে বিভিন্ন ধরণের অর্থনৈতিক প্রণোদনার প্রয়োজন পড়বে। চীনের জাতীয় পরিসংখ্যান ব্যুরোর দেয়া তথ্য অনুসারে, ২০১৫ সালের শেষ চার মাসে দেশটির অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি কমে ৬.৮ শতাংশে চলে আসে।

হংকংভিত্তিক সিটিক ব্যাংক ইন্টারন্যাশনালের প্রধান অর্থনীতিবিদ লিয়াও কুন সংবাদ সংস্থা এএফপিকে বলেন, এটি অর্থনীতিকে স্থিতিশীল করার একটি প্রক্রিয়া। কিন্তু চীনের অর্থনীতি এখনও স্থিতিশীল হয়নি। পর্যবেক্ষকরা বলছেন, প্রকৃতপক্ষে সরকারি হিসাবের চেয়ে প্রবৃদ্ধির হার আরো কম। যদিও বেইজিং বিষয়টি প্রত্যাখ্যান করেছে।

ধীর প্রবৃদ্ধির কারণে চীনের কেন্দ্রীয় ব্যাংক ২০১৪ সালের পরে ৬ বার সুদের হার কমিয়েছে। এছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে চীনের শেয়ার বাজারে দরপতনের পরে বিশ্বজুড়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতংক তৈরি করেছে। চীনের অর্থনৈতিক ধীর প্রবৃদ্ধির কারণে রফতানি ও বিনিয়োগের চেয়ে ভোক্তা ও সেবা ভিত্তিক অর্থনীতির দিকে যাত্রা করছে।

এক দশকেরও বেশি সময় ধরে দ্রুত উত্থানের পর গত দু’বছর ধরে ধারাবাহিকভাবে খারাপ যাচ্ছে চীনের অর্থনীতি। অনেকের ধারণা, চীন সরকার রপ্তানি ও বিনিয়োগের বদলে ব্যয় এবং সেবানির্ভর অর্থনীতির পথে এগিয়ে যাচ্ছে। যা চীনের অর্থনীতির জন্য একটি বিরাট চ্যালেঞ্জ।