মেইন ম্যেনু

সরকার ২ মাসের মধ্যে ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হবে

আগামী এক থেকে দুই মাসের মধ্যেই আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতা ছাড়তে বাধ্য হবে বলে মন্তব্য করেছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য ড. এমাজউদ্দীন আহমেদ।

শনিবার রাতে রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার ইন্সটিটিউট মিলনায়তনে বিএনপি আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার অষ্টম কারামুক্তি দিবস উপলক্ষে এ আলোচনা সভায় আয়োজন করা হয়। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের এতে সভাপতিত্ব করেন।

এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেন, ‘সরকারের যখন পতনের সময় আসে, তখন তারা স্বৈরাচার ও ফ্যাসিবাদী আচারণ শুরু করে। আর বর্তমান সরকার সে ধরনের কাজই করছে। তাই অতি অল্প সময়েই সরকারের পতন নিশ্চিত হবে। আর তখন আওয়ামী লীগ ‘ছেড়ে দে মা কেদে বাঁচি’ বলতে বাধ্য হবে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘গণতান্ত্রিকপন্থায় দলকে সংগঠিত করতে হবে। একই সঙ্গে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় নেতাদেরও নির্বাচন করতে হবে। তাহলেই সফলতা সম্ভব। অন্যথায় নয়।’

খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ করে এমাজউদ্দীন আরো বলেন, ‘আপনি যেভাবে অগ্রসর হতে চাচ্ছেন সেভাই অগ্রসর হন। কারণ, আপনার পাশে তরুণ-তরুণী অনেক আছে। আপনি জনপ্রিয় নেত্রী।’

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিতকে উদ্দেশ করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, ‘কোন যুক্তিতে আপনি শিক্ষার্থীদের ওপর ভ্যাট ধরেছেন। আপনি ভ্যাট ধরার পর বলেছেন, শিক্ষার্থীদের ভ্যাট দিতে হবে না, ভ্যাট দেবে প্রতিষ্ঠান। কিন্তু আমার কথা হচ্ছে, প্রতিষ্ঠান এ টাকাতো শিক্ষার্থীদের কাছ থেকেই নেবে।’

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘কাদের পকেট ভর্তি করা জন্য শিক্ষার্থীদের ওপর ভ্যাট ধরেছেন। এ সব টাকার হিসাব আপনার কাছ থেকে নেয়া হবে। আর এর জন্য একদিন আপনার বিচার করবে জনগণ।’

এসময় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য দেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শাসুজ্জামান দুদু, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, আন্তর্জাতিকবিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন, যুববিষয়ক সম্পাদক সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, গণশিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট সানা উল্লাহ মিয়া, সহধর্মবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মাসুদ আহমেদ তালুকদার, সহদপ্তর সম্পাদক শামীমুর রহমান শামীম, আসাদুল করিম শাহীন, মহিলা দলের সভাপতি নূরে আরা সাফা প্রমুখ।