মেইন ম্যেনু

৩১ বল পর মুস্তাফিজের শিকার কোহলি

শনিবার ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএল) বিশ্বের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান বিরাট কোহলির উইকেট নিয়েছেন মুস্তাফিজুর রহমান। সানরাইজার্স হায়দরাবাদের পেসার মুস্তাফিজের স্লোয়ারে এগিয়ে এসে মারতে গিয়ে ব্যাকওয়ার্ড পয়েন্টে ক্যাচ দেন কোহলি।

সব ধরনের ক্রিকেটের হিসাবে ৩১ বল পর মুস্তাফিজের শিকার হন ভারতের এ ব্যাটসম্যান।

গত বছরের এপ্রিলে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অভিষেক হয় মুস্তাফিজুর রহমানের। অভিষেকের পর থেকে দাপটের সঙ্গে ক্রিকেট বিশ্ব শাসন করে যাচ্ছেন বাঁহাতি এ পেসার। নিজেকে প্রতিনিয়ত চেনাচ্ছেন নতুন রূপে।

মুস্তাফিজের বিস্ময়কর আবিষ্কার ‘কাটার’ ও ‘স্লোয়ার’ এর রহস্য এখনো বের করতে পারেননি ক্রিকেট বিশ্লেষক, প্রতিপক্ষ ব্যাটসম্যানরা। গতি, সুইং, কাটার, স্লোয়ার মিলিয়ে মুস্তাফিজ আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বিস্ময়কর এক নাম। বিশ্বের বাঘা বাঘা ব্যাটসম্যানদের উইকেট এরই মধ্যে পকেটে পুরেছেন মুস্তাফিজ। ক্রিস গেইল, এবি ডি ভিলিয়ার্স, শেন ওয়াটসন, মহেন্দ্র সিং ধোনি, শহীদ আফ্রিদি কিংবা হাশিম আমলা, সবারই উইকেটই পেয়েছেন মুস্তাফিজ।

বাদ ছিল শুধু বিরাট কোহলির উইকেট। শনিবার রাতে কোহলির উইকেট নিয়েও ‘আক্ষেপ’ দূর করেন মুস্তাফিজ! বিশ্বের নতুন তারকা মুস্তাফিজের খাতায় বিরাট কোহলির নাম থাকবে না, এটা কি হয়! মুস্তাফিজ ষোলকলা পূর্ণ করলেন শনিবার রাতেই।

অবশ্য মুস্তাফিজের বলে কোহলি আহামরি কিছু করে ফেলেছেন, সেটি চিন্তা করাও ভুল হবে। কারণ এখন পর্যন্ত সব ধরনের ক্রিকেটে মুস্তাফিজের ৩২ বল খেলেছেন কোহলি। যেখানে ২২ বলে কোনো রান নিতে পারেননি কোহলি। বাকি ১০ বলে রান নিয়েছেন মাত্র ২৫। ২৫ রান নিতে ৪টি সিঙ্গেল, ২টি ডাবলস, ১টি তিন রান, ২টি চার, ১টি ছয় মেরেছেন কোহলি।

ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে নিজের প্রথম ম্যাচে কোহলির দল রয়েল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরুর মুখোমুখি হন মুস্তাফিজ। প্রথম ম্যাচে ২ উইকেট পাওয়া মুস্তাফিজ কোহলিকে ৯টি বল করেন। ৯ বলে ৮ রান তোলেন কোহলি। যেখানে ১টি বাউন্ডারির সঙ্গে ছিল ৫টি ডট বল। শনিবার দ্বিতীয় মুখোমুখিতে প্রথম বলে রান শূন্য থাকার পর দ্বিতীয় বলে উইকেট হারান কোহলি।

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে মুস্তাফিজের অভিষেকের পর ভারত, বাংলাদেশ দুটি ম্যাচ খেলে। দুটিতেই দলে ছিলেন মুস্তাফিজ। প্রথম মুখোমুখিতে ঢাকায় এশিয়া কাপে মুস্তাফিজের ৬ বল খেলেন কোহলি। ৫টি বলই ছিল ডট। একটি বলে নেন ২ রান। দ্বিতীয় মুখোমুখিতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে বেঙ্গালুরুতে কোনো বল খেলার সুযোগ পাননি কোহলি। সেবার আউট হন ‍শুভাগত হোমের বলে।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিজের অভিষেক ম্যাচে রোহিত শর্মা, অাজিঙ্কা রাহানে ও সুরেশ রায়নাদের উইকেট পেয়েছিলেন মুস্তাফিজ। বাদ পড়েছিলেন শুধু মহেন্দ্র সিং ধোনি ও বিরাট কোহলি। ধোনির উইকেট দ্বিতীয় ম্যাচে পেলেও কোহলিরটা পাওয়া হয়নি। প্রথম ওয়ানডে মুস্তাফিজের বলের মুখোমুখি হতে হয়নি কোহলিকে। দ্বিতীয় ওয়ানডেতে ১২ বল খেলেছেন বিশ্বের অন্যতম সেরা এ ব্যাটসম্যান। ১২ বলের ৮টিই ছিল ডট। ১ চার ও ১ ছক্কায় অবশ্য ১২ রান নিয়েছিলেন কোহলি। তৃতীয় ওয়ানডেতে মোস্তাফিজের ৩ বলে ১ রান করেছিলেন কোহলি। ডট বল ছিল ২টি।

শচীন কিংবা লারাদের সময়ে তাদের উইকেট পাওয়া ছিল অনেক বড় কৃতিত্ব। বর্তমান ক্রিকেটে সবচেয়ে বড় তারকা ব্যাটসম্যান বলা হয় বিরাট কোহলিকে। নিঃসন্দেহে তার উইকটে পাওয়া বিশেষ কিছু। অন্তত প্রাপ্তির খাতায় নতুন একটি পালক তো যুক্ত হল মুস্তাফিজের।