মেইন ম্যেনু

৩৫ লাখ কোটি ডলার দিয়ে কিনতে হয় ১ মার্কিন ডলার !

সকালে পাড়ার দোকান থেকে দৈনন্দিন ডিম-পাঁউরুটি কিনতে থলেভর্তি টাকা যদি নিয়ে যেতে হয় তাহলে চমকে ওঠাই স্বাভাবিক। ঠাট্টা নয়, ভয়াবহ মূদ্রাস্ফীতির জেরে এমনই পরিস্থিতির শিকার হয়েছেন জিম্বাবোয়ের বাসিন্দারা।

দেশের অর্থনীতির হাল ভয়াবহ। মূদ্রাস্ফীতির হার তলানিতে ঠেকার দরুণ প্রচলিত মূদ্রা ব্যবস্থা খারিজ করার নির্দেশ দিয়েছে প্রেসিডেন্ট মুগাবের সরকার। গত বৃহস্পতিবার এ সংবাদ ফাঁস করেছে দেশের সেন্ট্রাল ব্যাংক। বর্তমানে জিম্বাবোয়ের স্থানীয় ৩৫ লাখ কোটি ডলার দিয়ে কিনতে হয় ১ মার্কিন ডলার।

২০০৮ সালে চরমতম অবস্থায় পৌঁছেছে জিম্বাবোয়ের অর্থনীতিতে। মূদ্রাস্ফীতির হার দাঁড়ায় ৫০ কোটি শতাংশে, যার জেরে রোজের বাজার করতে গিয়ে প্লাস্টিক ব্যাগভর্তি টাকা নিয়ে বেরোতেন বাসিন্দারা।

দিনে দুইবার করে দাম বাড়ার রেওয়াজ ছিল জিনিসপত্রের। অচলাবস্থা এড়াতে ২০০৯ সাল থেকে মার্কিন ডলার ও দক্ষিণ আফ্রিকীয় র‌্যান্ড ব্যবহার করা শুরু করেন জিম্বাবোয়ের নাগরিক।

সরকারের নয়া ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী সোমবার থেকে ২০০৯ সালের আগে ব্যাঙ্কে জিম্বাবোয়ের যেসব নাগরিকের জিম্বাবোয়েয়ান ডলার অ্যাকাউন্ট রয়েছে, তারা তা মার্কিন ডলার বদলে নিতে পারবেন। এক বিবৃতিতে এ খবর জানিয়েছেন রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ জিম্বাবোয়ের গভর্নর জন মাঙ্গুদায়া।

আগামী সেপ্টেম্বর মাসের মধ্যে পুরনো জিম্বাবোয়েয়ান ডলার ব্যাঙ্কে ভাঙিয়ে নেয়ার সুয়োগ পাবেন অ্যাকাউন্ট হোল্ডাররা। এভাবেই দেশের পুরনো মূদ্রা অচল করে দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছে মুগাবে সরকার। সূত্র : এই সময়



(পরের সংবাদ) »