মেইন ম্যেনু

৪ কোপে বিচ্ছিন্ন হয় দীপনের মাথা, ৫ মিনিটেই মৃত্যু

জাগৃতি প্রকাশনীর মালিক ফয়সাল আরেফিন দীপনকে ঘার ও মাথার সংযোগস্থলে ধারালো অস্ত্র দিয়ে চারটি কোপ দেয়া হয়। এতে তার মাথা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। নৃশংস হামলার পর প্রচুর রক্তক্ষরণ হয় তার দেহ থেকে এবং রক্তক্ষরণের পাঁচ মিনিটের মধ্যেই তার মৃত্যু হয়।

আজ রবিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক কাজী আবু শ্যামা এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, এর আগে যতগুলো ব্লগারকে হত্যা করা হয়, তাদের প্রায় সবাইকে একই কায়দায় কোপানো হয়।

এর আগে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক কাজী আবু শ্যামা ও প্রভাষক ডা. প্রদীপ বিশ্বাস নিহতের ময়না তদন্ত করেন। লাশের সুরতহাল সম্পন্ন করেন শাহবাগ থানার পরিদর্শক শাহিন ফকির। বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে নিহতের লাশের গোসল করানো হচ্ছে।

দীপনের নামাজে জানাজা বাদ জোহর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। পরে তাকে রাজধানীর আজিমপুর কবরস্থানে দাফন করা হবে বলে জানিয়েছেন নিহত ফয়সাল আরেফিন দীপনের দোকানের ম্যানেজার মো. আলাউদ্দিন।

গতকাল শনিবার বিকালে শনিবার বিকালে শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের তৃতীয় তলায় নিজ অফিসে দীপনকে কুপিয়ে বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে পালিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। পরে পুলিশ তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এর আগে শনিবার দুপুরে আরেক প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান শুদ্ধস্বরের লালমাটিয়ার কার্যালয়ে ঢুকে স্বত্বাধিকারী আহমেদুর রশীদ টুটুলসহ তিনজনকে কুপিয়ে জখম করে দুর্বৃত্তরা। তারা বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। তাদের একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।