মেইন ম্যেনু

৫১ বলে দুর্দান্ত সেঞ্চুরি মাশরাফির

এর আগে অবশ্য সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছিলেন মাশরাফি বিন মুর্তজা। সেটা ছিল ‘ফাস্ট ক্লাস’ ক্রিকেটে, যা ঘরোয়া ক্রিকেটের লঙ্গার ভার্সন। সেবার ১৩২ রানের অপরাজিত ইনিংস খেলেছিলেন তিনি। এবার লিস্ট ‘এ’ ক্রিকেটে প্রথমবারের মতো দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি করলেন মাশরাফি।

ফতুল্লার খান সাহেব ওসমান আলী স্টেডিয়ামে শেখ জামালের বিপক্ষে ১০৪ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলেছেন বাংলাদেশ জাতীয় দলের ওয়ানডে ও টি২০ অধিনায়ক। মাশরাফির ৫১ বলের ইনিংসটি ছিল ২টি চার ও ১১টি ছক্কায় সমৃদ্ধ। স্ট্রাইক রেট ২০৩.৯২! শফিউল ইসলামের বলে মার্শাল আইয়্যুবের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন মাশরাফি।

একই ম্যাচে হাফসেঞ্চুরি করেছেন জসিমউদ্দিন। ৯৭ বলে পাঁচটি চার ও একটি ছক্কায় ৬৪ রান করেন তিনি। বিদায় নিয়েছেন সোহাগ গাজীর বলের বোল্ডআউট হয়ে। মাশরাফি-জসিমউদ্দিনের অসাধারণ ব্যাটিংয়ে ভর করে ৫০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ৩১৬ রানের বড় পুঁজি সংগ্রহ করেছে কলকাগান ক্রীড়া চক্র। জয়ের জন্য ৩১৭ রানের টার্গেট ছুড়ে দিয়েছে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের দল শেখ জামালকে।

কলবাগানের পক্ষে রান পেয়েছেন হ্যামিল্টন মাসাকাদজাও। ৪৫ রান করে রানআউটে কাটা পড়েন তিনি। তাসামুল হকের ব্যাট থেকে এসেছে ৩৩ রান। ওপেনার সাদমান ইসলাম করেন ১৭ রান। মেহরাব হোসেন জুনিয়রের ব্যক্তিগত ইনিংস থামে ১৬ রানে।

১০ ওভারে ৩৯ রান দিয়ে ২ উইকেট নিয়ে শেখ জামালের সেরা বোলার সোহাগ গাজী। অধিনায়ক মাহমুদুল্লাহও পেয়েছেন ২ উইকেট। তবে ৯ ওভারে তিনি খরচ করেছেন ৫৬ রান। একটি করে উইকেট নিয়েছেন সাজমুস সাদাত ও শফিউল ইসলাম।