মেইন ম্যেনু

৫ ছাত্রলীগ নেতার ১০ কোটি টাকা চাঁদা দাবি!

রংপুর বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা হাসান মাহমুদসহ পাঁচ নেতার বিরুদ্ধে ১০ কোটি টাকা চাঁদাবাজির অভিযোগ উঠেছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের কাছে এ ব্যাপারে লিখিত অভিযোগ করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলম।

অভিযোগে তিনি উল্লেখ করেছেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন কাঠামোর জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১০০ কোটি টাকার অনুদান দিয়েছেন। এই টাকার ১০ ভাগ চাঁদা দাবি করেন বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ছাত্রলীগের পাঁচ নেতা। না দিলে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়। এছাড়া তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিতের অভিযোগ করা হয়। টাকা না দিলে তাকে এবং তার অফিস বোমা মেরে উড়িয়ে দেয়ার হুমকি দেয়া হয় বলে তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেছেন।

বুধবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করে তিনি জানান, ‘জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে উপাচার্য ড. এ কে এম নূর উন নবী মহোদয়ের কাছে আমি একটি লিখিত অভিযোগ করেছি। এছাড়া লিখিত অভিযোগের অনুলিপি রংপুর পুলিশ সুপার, রংপুর র‌্যাব-১৩ এর অধিনায়ক, এনএসআই এর ডিডি, ডিজিএফ আই, রংপুর কোতোয়ালি থানার ওসি এবং রংপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি/সম্পাদকের কাছে দিয়েছি।’
৫ ছাত্রলীগ নেতার ১০ কোটি টাকা চাঁদা দাবি!

rafik-rangpur1111111_78589_1

অভিযুক্ত ছাত্রলীগের নেতারা হলেন- বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা হাসান মাহমুদ (অ্যাকাউনটিং ২য় ব্যাচ), সহ-সভাপতি আরিফুল ইসলাম (বাংলা ১ম বর্ষ), সহ-সভাপতি মোহাম্মদ আলী রাজ (অ্যাকাউনটিং মাস্টার্স), যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শাহিনুর রহমান (অ্যাকাউনটিং ২য় ব্যাচ) এবং পিয়াল (অ্যাকাউনটিং ৩য় ব্যাচ)।

উপাচার্যকে দেয়া অভিযোগপত্রে প্রকৌশলী জাহাঙ্গীর আলম উল্লেখ করেন, ‘বুধবার বেলা ১২টার দিকে ছাত্রলীগের ওই পাঁচ নেতা তার কাছে এসে চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানায় তারা আমার দপ্তরে এসে কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সামনে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। একপর্যায়ে তারা রুমের ভেতরে নেয়ার জন্য হুড়োহুড়ি করে।

পরবর্তীতে তারা আমাকে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চলে যা। এবং বঙ্গবন্ধু সম্পর্কে বাজে মন্তব্য করেছি আমার বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ দিয়ে সবখানে নালিশ করার হুমকি দিয়ে যায়। তাদের এমন আচরণ ও প্রাণনাশের হুমকিতে আমি উদ্বিগ্ন এবং নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। তারা প্রকৌশল দপ্তরে আমার অফিসে দাপ্তরিক কাজে বাঁধা সৃষ্টি করছে।’

তিনি আরও বলেন, আমি নিজেও বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করি। বিশ্ববিদ্যালয়ের বঙ্গবন্ধু পরিষদের আমি একজন সক্রিয় সদস্য। জননেত্রী পরিষদ, বিশ্ববিদ্যালয় শাখার আমি একজন সক্রিয় সদস্য।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার মোরশেদুল আলম রণি জানান, অভিযোগপত্রটি আমরা পেয়েছি।
এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা হাসান মাহমুদের সঙ্গে মোবাইলে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।ঢাকাটাইমস