মেইন ম্যেনু

৬টি রসালো ফল যেগুলো ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখে

শরীরে ইনসুলিন এর ঘাটতি হলে ডায়াবেটিস হয়ে থাকে। এতে রক্তের সুগার লেভেল বেড়ে যায়। মিষ্টি ফলে অনেক সুগার থাকে বলে বেশির ভাগ মানুষই মনে করেন যে ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের মিষ্টি ফল খাওয়া উচিত নয়। যদিও এমন কিছু ফল আছে যারা রক্তের সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। বিশেষ করে রসালো কিছু ফল আছে যারা ডায়াবেটিস এর জন্য উপকারি। যেসব ফলের গ্লিসামিক ইনডেক্স কম থাকে সে সব ফল ডায়াবেটিস এর জন্য উপকারি। আসুন জেনে নেই সেই ফল গুলোর পরিচয়।

১। জাম্বুরা

ডায়াবেটিস এ আক্রান্তদের জন্য জাম্বুরা একটি নিরাপদ ফল। ভিটামিন সি এ সমৃদ্ধ এই ফলে উচ্চ মাত্রার দ্রবণীয় ফাইবার থাকে যার গ্লিসামিক ইনডেক্স ২৫ এবং পানির পরিমাণ থাকে ৯১%। এছাড়াও জাম্বুরাতে নারিঞ্জেনিন নামক ফ্ল্যাভনয়েড থাকে যা শরীরের সংবেদনশীলতাকে উদ্দীপিত করে ইন্সুলিন বৃদ্ধি করে। প্রতিদিন অর্ধেক পরিমাণ জাম্বুরা খেতে পারেন যা আপনার রক্তের সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখবে।

২। স্ট্রবেরি

স্ট্রবেরিতে ভিটামিন,অ্যান্টিওক্সিডেন্ট ও ফাইবার থাকে যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে। এতে শর্করা কম থাকে, ৯২% পানি থাকে এবং এর গ্লিসামিক ইনডেক্স ৪০। স্ট্রবেরি পাকস্থলি ভরা রাখে, এনার্জি প্রদান করে ও রক্তের সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখে। আপনি এক কাপের ৪ভাগের ৩ ভাগ পরিমাণ স্ট্রবেরি খেতে পারেন।

৩। কমলা

পুষ্টিকর এই ফলটিতে পানি থাকে ৮৭% যার গ্লিসামিক ইন্ডেক্স খুবই কম। এছাড়াও এতে প্রচুর ফাইবার থাকে, চিনি কম থাকে এবং ভিটামিন সি ও থায়ামিন থাকে যা রক্তের সুগার লেভেল নিয়ন্ত্রণে রাখে। প্রতিদিন ১টা কমলা খেতে পারেন।

৪। চেরি

চেরির গ্লিসামিক ইন্ডেক্স মাত্র ২২ এবং এতে ভিটামিন সি,অ্যান্টিওক্সিডেন্ট,আয়রন,বিটা ক্যারোটিন,পটাশিয়াম,ফলেট,ম্যাগনেসিয়াম ও ফাইবার থাকে। চেরিতে অ্যান্থসায়ানিন থাকে যা ইনসুলিন এর নিঃসরণ বৃদ্ধি করে রক্তের সুগার লেভেল কমায়।তাই দিনে ১ কাপ বা আধা কাপ চেরি খেতে পারেন।

৫। তরমুজ

তরমুজে বিটা ক্যারোটিন,ভিটামিন বি ও সি,লাইকোপেন এবং পটাশিয়াম আছে। এতে পানি থাকে ৯২%। দিনে ১ স্লাইস তরমুজ খেতে পারেন নিশ্চিন্তে।

৬।আপেল

রসালো ও সুস্বাদু ফল আপেল এ ভিটামিন সি,অ্যান্টিওক্সিডেন্ট ও দ্রবণীয় ফাইবার আছে।এতে পেক্টিন থাকে যা শরীরের টক্সিন বের হয়ে যেতে সাহায্য করে এবং ডায়াবেটিক্সের ইনসুলিন চাহিদা ৩৫% কমায়। তাই দৈনিক ১টা আপেল ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে।

ফলের জুসে সুগার বেশি থাকে কারণ আস্ত ফলের চেয়ে এতে ফাইবার কম থাকে।এজন্য ফলের জুস না খেয়ে আসল ফল খেতে হবে ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের।

লিখেছেন-

সাবেরা খাতুন