মেইন ম্যেনু

৬০ বছরের বৃদ্ধার সঙ্গে ১২ বছরের এক নাবালিকার বিয়ে !!!

প্রতিদিন সারা বিশ্বে ৩৩ হাজার মেয়েশিশুর বাল্যবিযে হচ্ছে। অল্প বয়সেই বিয়ে দিয়ে এসব শিশুদের শৈশবকে কেড়ে নেওয়া হচ্ছে।শুধু তাই নয়, শিক্ষা অধিকার ও সুযোগ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে এসব শিশুরা। তবে অনুন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলোতে এই বাল্যবিয়ের প্রবণতা অনেক বেশি। কিন্ত উন্নত দেশে বাল্যবিয়ের কথা চিন্তাই করা যায় না।

যুক্তরাষ্ট্রে বাল্যবিয়ের বিরুদ্ধে সাধারণ জনগণের প্রতিক্রিয়া জানতে সম্প্রতি কবি পারসিন নামে একটি সংগঠন সামাজিক অনুসন্ধান পরিচালনা করে।

৬০ বছরের এক বৃদ্ধার সঙ্গে ১২ বছরের এক নাবালিকার সাজানো বিয়ের ঘটনায় আমেরিকার লোকজনের প্রতিক্রিয়া কী? সেটাই জানতে একটি জনসম্মুখে এই ভিডিও ধারণ করা হয়।

ইউটিউবে আপলোড করা ওই ভিডিওতে দেখা যায়,বৃদ্ধ ওই বালিকাকে বিয়ের পোশাক পরিয়ে নিউ ইয়র্কের টাইমস স্কয়ারে ঘুরতে নিয়ে যান। তাদের সঙ্গে একজন ফটোগ্রাফারকেও নেয়া হয় ছবি তোলার জন্য। অসম এই দম্পতিকে দেখে নিউ ইয়র্কবাসীর প্রতিক্রিয়া ধারণ করার জন্য ঐ ফটোগ্রাফার গোপন ক্যামেরাও সঙ্গে নেন।

ভিডিতে দেখা যায়, বিয়ের পোশাক পরা শিশুটিকে নিয়ে যখন ওই বৃদ্ধ ছবি তোলার জন্য পোজ দিচ্ছেন তখন টাইমস স্কয়ারে ঘুরতে আসা নারী-পুরুষ অবাক চোখে তাকিয়ে ছিল তার দিকে। ৬০ বছরের বৃদ্ধের সঙ্গে ১২ বছরের শিশুকে দেখে তাদের চোখ রীতিমত কপালে উঠে যায়। এসময় জনগণ কৌতূহলী হয়ে বৃদ্ধকে নানা প্রশ্ন ছুঁড়ে মারতে থাকেন।

বৃদ্ধের সঙ্গে ছোট্ট শিশুর বিয়ের বিষয়টি জানতে পেরে এক নারী তো কেঁদেই ফেললেন।

অন্যজন বৃদ্ধার কাছ জানতে চাচ্ছেন- কেন আপনি তাকে বিয়ে করেছেন। এতো আপনার মেয়ের বয়সী।

এসময় একজন নারী ওই শিশুকে প্রশ্ন করে- তোমার মা কোথায়। জবাবে বৃদ্ধ লোকটি বলে আমার সাথে বিয়ে দিতে মেয়েটির বাবা-মার কোন আপত্তি নেই।

অনেককেই এসময় উত্তেজিত হয়ে বৃদ্ধ লোকটিকে পুলিশেও দিতে চেয়েছেন।