মেইন ম্যেনু

অনিয়মিত পিরিয়ড নিয়মিত করে তুলুন ৬টি ঘরোয়া উপায়ে

মাসিক বা পরিয়ডের ক্ষেত্রে নারীদের একটি সমস্যায় প্রায় পড়তে হয় তা হল অনিয়মিত মাসিক। গর্ভধারণ ছাড়াও আরও কিছু কারণে মাসিক অনিয়মিত হতে পারে। এর মধ্যে অন্যতম হল যেমন- অতিরিক্ত ওজন হ্রাস, স্ট্রেস, থাইয়রেড সমস্যা, মানসিক চাপ, ওভারির সমস্যা, অতিরিক্ত ব্যায়াম, হরমোন ভারসাম্যহীনতা ইত্যাদি। মাসিক অনিয়মিত হলে দুশ্চিন্তার শেষ থাকে না। বিশেষ করে বিবাহিত নারীরা অনিয়মিত পরিয়ড নিয়ে আতঙ্কিত থাকেন। এই অনিয়মিত পরিয়ডকে নিয়মিত করা যায় সহজ কিছু উপায়ে।

১। আদা

আদা মাসিক নিয়মিত করতে এবং মাসিকের ব্যথা কমাতে বেশ কার্যকর। এক কাপ পানিতে আধা চা চামচ আদা কুচি দিয়ে পাঁচ থেকে সাত মিনিট জ্বাল দিন। এরসাথে সামান্য চিনি মিশিয়ে নিন। এটি দিনে তিনবার খাওয়ার পর পান করুন। এটি প্রতিমাসে করুন, দেখবেন পিরিয়ড নিয়মিত হয়ে গেছে।

২। অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার

এক গ্লাস পানিতে এক দুই টেবিল চামচ অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার মিশিয়ে নিন। এটি খাবার খাওয়ার আগে পান করুন। প্রতিদিন একবার পান করুন। অ্যাপেল সাইডার ভিনেগার রক্তে ইনসুলিন এবং চিনির মাত্রা কমিয়ে দেয়। যা মাসিক নিয়মিত করতে সাহায্য করে।

৩। তিল এবং গুড়

তিল আপনার অনিয়মিত মাসিককে নিয়মিত করতে সাহায্য করবে। তিলের উপাদান হরমোন উৎপাদন করে থাকে। অল্প পরিমাণের তিল ভেজে গুঁড়ো করে নিন। এর সাথে এক চামচ গুড় মিশিয়ে নিন। এটি প্রতিদিন খালি পেটে এক চা চামচ করে খান। প্রতিদিন গুড় খেলেও আপনার মাসিক নিয়মিত হবে।

৪। দারুচিনি

এক গ্লাস দুধে আধা চা চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এটি প্রতিদিন পান করুন। এছাড়া দারুচিনির চা অথবা বিভিন্ন খাবারে দারুচিনি গুঁড়ো ছিটিয়ে খেতে পারেন। দারুচিনি মাসিক চক্র নিয়মিত রাখে এবং পেট ব্যথা কমিয়ে দেয়।

৫। টক জাতীয় ফল

টক জাতীয় ফল বিশেষ করে তেঁতুল মাসিক নিয়মিত করতে সাহায্য করে থাকে। চিনি মেশানো পানিতে তেঁতুল এক ঘণ্টা ভিজিয়ে রাখুন। এরপর এর সাথে লবণ, চিনি এবং জিরা গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এটি দিনে দুই বার পান করুন। এটি আপনার অনিয়মিত মাসিককে নিয়মিত করে দেবে।

৬। হলুদ

হলুদ মাসিক নিয়মিত এবং হরমোনের ভারসাম্য বজায় রাখতে সাহায্য করে। এক গ্লাস দুধে এক দুই চা চামচ হলুদ মিশিয়ে নিন। এরসাথে মধু বা গুঁড় মেশাতে পারেন। এটি প্রতিদিন করে সপ্তাহে কয়েকবার পান করুন।