মেইন ম্যেনু

অবিশ্বাস্য! এই মুসলিম ক্রিকেটার পা দিয়ে বল করেন, গলা দিয়ে ব্যাট করেন

1478668403

এমন অনেক কিছুই রয়েছে যা মুগ্ধ করে সবাইকে। তবে এক ক্রিকেটারের ক্ষেত্রে এমন কিছু। তিনি পা দিয়ে বল করেন আর গলা দিয়ে ব্যাট করেন। এমন কষ্ট করেই মাঠ মাতান তিনি।

আমির নামক এক মুসলিম এমন সংগ্রাম করেন খেলার মাঠে। তার ক্রিকেট খেলা দেখলে যে কারও চোখ বিস্ময়ে কপালে না উঠে পারবে না। যার দুটি হাতই নেই, সে কি না দিব্যি ক্রিকেট খেলে যাচ্ছে। তাও একটি দলের অধিনায়ক এবং চ্যাম্পিয়নও তিনি। রীতিমত অবিশ্বাস্য।

আসলে মানুষের ‘ইচ্ছা শক্তি’ কী না করতে পারে। ইচ্ছা শক্তি এই শব্দ দু’টির জোর কতখানি, তা জম্মু-কাশ্মীরের আমির হোসেনকে না দেখলে বোঝা যায় না। কে এই আমির হোসেন? এর এই শব্দ দু’টির সঙ্গেই বা তার কী সম্পর্ক?

এবার আসল কথায় আসা যাক। কাশ্মীরের প্যারা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক ২৬ বছরের এই যুবক। তার দু’টো হাতই নেই। হাত ছাড়া ক্রিকেট খেলার কথা ভাবাই যায় না; কিন্তু আমির দেখিয়ে দিয়েছেন, হাত না থাকলেও কী হবে, মনের জোর থাকলেই যে ক্রিকেট খেলা যায়! এর জন্য অবশ্য শুধু দরকার ক্রিকেটের প্রতি ভালবাসা এবং সেই দু’টি শব্দ ‘ইচ্ছা শক্তি’। এই দু’টোই মূলধন কাশ্মীরী এই যুবকের।

আমিরের ব্যাটিং করার একটা বিশেষ স্টাইল রয়েছে। যা সকলকে চমকে দেওয়ার মতো। কাঁধে ব্যাট রেখে থুতনিতে চেপে ব্যাট ধরেন আমির। তারপর ব্যাটিং করেন। আবার বোলিংও করেন তিনি। কীভাবে? পা দিয়ে। শুনতে অবিশ্বাস্য মনে হলেও এটাই সত্যি। অনেকের কাছে অবিশ্বাস্য মনে হবে যে, পায়ে কিভাবে বল গ্রিপ করেন তিনি। কিন্তু ভিডিওটি দেখলেই সেই অবিশ্বাস দূর হবে নিশ্চিত।

আমির শারীরিক প্রতিবন্ধী ছিলেন না। বয়স তখন ওর আট বছর। তার বাবার ব্যাট তৈরির কারখানা ছিল। সেখানেই কাজ করতেন আমির। সেই সময় ব্যাট তৈরির মেশিনে তার দু’হাত গুরুতর জখম হয়। পরে একেবারে কাঁধ থেকে কেটে বাদ দিতে হয় দু’টো হাতই। কিন্তু ক্রিকেটের প্রতি ভালোবাসা আর কঠিন অধ্যবসায়ের কারণে আজ আমির কাশ্মীরের প্যারা ক্রিকেট দলের অধিনায়ক।