মেইন ম্যেনু

আইন ভেঙে বাংলার পুলিশকর্মীদের নাচ! দেখলে লজ্জা পাবেন সালমানও

6a00e551a4e0f3883301a3fce3ff68970b-800wi

ঘড়ির কাটায় এগারোটা বেজে গিয়েছে! তাতে কী? জলসা চলছে, আর সঙ্গে চলছে উদ্দাম নাচ। ঘটনাস্থল দক্ষিণ ২৪ পরগনার কুলতলি থানা। আর গানের তালে তালে উদ্দাম নাচছেন পুলিশকর্মী এবং সিভিক ভলন্টিয়াররা।

আইন অনুযায়ী রাত দশটার পরে এইভাবে প্রকাশ্যে তারস্বরে মাইক বাজানো নিষিদ্ধ। পাড়ায় পাড়ায় দুর্গাপুজো, কালীপুজো বা অন্য অনুষ্ঠানে এই নিয়মভঙ্গের অভিযোগ অনেক অনুষ্ঠানের আয়োজকদের বিরুদ্ধেই ওঠে। কিন্তু এক্ষেত্রে অনুষ্ঠানের আয়োজকই পুলিশ। কালীপুজো উপলক্ষে সোমবার রাতে কুলতলি থানায় জলসার আয়োজন করা হয়েছিল। সেই অনুষ্ঠানেই গভীর রাত পর্যন্ত তারস্বরে বক্স বাজিয়ে উদ্দাম নাচ-গানে মাতলেন পুলিশকর্মীরা। জলসা উপভোগ করতে স্থানীয় গ্রামবাসীরাও উপস্থিত ছিলেন। আর থানার পুলিশকর্মী এবং সিভিক ভলন্টিয়াররা তো ছিলেনই। থানায় নিয়মভঙ্গের এই ছবি তুলতে গেলে সেই পুলিশকর্মীরাই সংবাদমাধ্যমের উপরে চড়াও হয় বলে অভিযোগ। এমনকী, সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের থানার ভিতরে ঢুকিয়ে তাঁদের ক্যামেরাও কেড়ে নেওয়া হয়। সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের উদ্দেশে অশ্রাব্য গালিগালাজও করে পুলিশকর্মীদের একাংশ। পুলিশকর্মী এবং সিভিক ভলেন্টিয়ারদের মধ্যে কয়েকজন মদ্যপ অবস্থায় ছিল বলেও অভিযোগ। পরে থানার ওসির হস্তক্ষেপে ক্যামেরা ফেরত দেওয়া হয়।

পুলিশকর্মীরা আনন্দ করবেন, তাতে প্রশ্ন তোলার কিছু নেই। কিন্তু আইনের রক্ষকরাই যদি আইন ভাঙেন, তাহলে সেই উদাহরণ সামনে রেখেই তো প্রতিনিয়ত নিয়ম ভাঙতে পারে সাধারণ মানুষ। কেন এইভাবে তারস্বরে মাইক বাজিয়ে রাত দশটার পরেও উদ্দাম নাচ-গান চলল, তার যথাযথ উত্তর পুলিশের পক্ষ থেকে পাওয়া যায়নি। -এবেলা।