মেইন ম্যেনু

আইভীকে বাদ দিয়ে তিনজনের নাম প্রস্তাব

nasik20161115190303

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন (নাসিক) নির্বাচনে তফসিল ঘোষণার পর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা নড়েচড়ে বসেছেন।

বিশেষ করে বর্তমান মেয়র ডা. সেলিনা হায়াত আইভীকে কোণঠাসা করতে নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান নতুন মিশন নিয়ে মাঠে নেমেছেন। তাই শামীম ওসমান তার বলয়ের নেতাকে দিয়ে আওয়ামী লীগের মেয়র পদে প্রার্থী করার চিন্তা-ভাবনা করছেন।

মেয়র আইভীর নাম বাদ দিয়ে মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনসহ তিনজনের নাম পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

মঙ্গলবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেলা প্রশাসনের সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে মহানগর আওয়ামী লীগের বিশেষ বর্ধিত সভায় তিনজনের নাম উঠেছে এবং তাদের নাম চূড়ান্ত করে দলের হাইকমান্ডের কাছে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সভা শেষে মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাড. খোকন সাহা জানান, মঙ্গলবারের সভায় আনোয়ার হোসেন সভাপতিত্ব করলেও এখন তিনি নির্বাচনী কাজে থাকায় সহ-সভাপতি চন্দন শীলকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি চন্দন শীল জানান, সভায় সবার সম্মতিক্রমে একজনের নাম উঠে আসে। তিনি হলেন মহানগরের সভাপতি আনোয়ার হোসেন। যেহেতু কেন্দ্র থেকে তিনজনের নাম চাওয়া হয়েছে, সেহেতু আনোয়ার হোসেনের পাশাপাশি সিদ্ধিরগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মজিবর রহমান ও বন্দর থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি এম এ রশিদের নামও প্রস্তাব করা হয়েছে।

চন্দন শীল আরো জানান, মহানগরের ২৭টি ওয়ার্ডের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছাড়াও মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। তাছাড়া নারায়ণগঞ্জ সদর, বন্দর ও সিদ্ধিরগঞ্জ থানার নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

আইভীর নাম না থাকা প্রসঙ্গে চন্দন শীল জানান, সভায় উপস্থিত কোনো একজন নেতাও আইভীর নাম প্রস্তাব না করায় তার নাম দেয়ার সুযোগ নেই।

এর আগে বিকেল ৩টা হতে সার্কিট হাউজ মিলনায়তনে রুদ্ধদ্বার বৈঠকে সংসদ সদস্য শামীম ওসমানসহ মহানগর আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের অন্তত তিনজন সদস্যের প্যানেল তৈরি করে আগামী ২০ নভেম্বরের মধ্যে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নির্দেশনায় আরো বলা হয়, নারায়ণগঞ্জ মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদককে যৌথ স্বাক্ষরে প্যানেলভুক্ত প্রার্থীদের যোগ্যতা, নেতৃত্বের গুণাবলী ও জনপ্রিয়তার বিষয় উল্লেখ করে কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ডের কাছে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

প্যানেল হাতে পাওয়ার পর কেন্দ্রীয় মনোনয়ন বোর্ড একজনকে নারায়গঞ্জ সিটি কর্পোরেশনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ মনোনয়ন দেবে।

উল্লেখ্য, নির্বাচন কমিশন সোমবার নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করেছে। আগামী ২২ ডিসেম্বর নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।