মেইন ম্যেনু

আগাম নির্বাচনের পূর্বাভাস

election_29285_1477945430

সংবিধান অনুযায়ী জাতীয় নির্বাচনের দু’বছর বাকি থাকলেও দুটি প্রধান দল অনেকটা জোরেশোরে আগাম নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করেছে। বিশেষ করে সরকারি দলের কিছু পদক্ষেপ ও বক্তব্য খুবই উল্লেখযোগ্য।

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলীয় সম্মেলন থেকে ভোটারদের বাড়ি বাড়ি যাওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। নেতাকর্মীদের জানিয়ে দিয়েছেন সরকারের উন্নয়ন ও অগ্রগতির কথা তুলে ধরে কোনো প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন ছাড়া টানা তৃতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় আসার রেকর্ড গড়তে হবে।

রাজপথের বিরোধী দল বিএনপি এখনও প্রকাশ্যে কোনো উদ্যোগ না নিলেও পর্দার আড়ালে একেবারে সাজ সাজ রব। প্রতিদিনের বক্তৃতা বিবৃতিতে তাদের প্রধান অন্যতম এজেন্ডা এখন সবার কাছে গ্রহণযোগ্য নির্বাচন কমিশন গঠন। এ দাবিতে দলের সিনিয়র নেতারা প্রতিদিনই কথা বলছেন।

আর সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টি তো একেবারে ঘোষণা দিয়ে মাঠে নেমেছে। ১ অক্টোবর সিলেটে মাজার জিয়ারতের মধ্য দিয়ে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করেন দলটির চেয়ারম্যান সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষক মহলের অনেকে মনে করেন, নির্বাচনের আগাম প্রস্তুতির এমন চিত্রই বলে দিচ্ছে ২০১৯ সালের নির্বাচন অনেকটা আগেই হবে। পরিস্থিতি ও রাজনৈতিক পূর্বাভাস তাই বলছে।

এছাড়া আন্তর্জাতিকভাবে প্রভাব বিস্তারের কিছু বিষয়কেও গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। প্রকাশ্যে না হলেও কারও কারও মতে আসন্ন মার্কিন নির্বাচনের ফলাফলের সঙ্গে বাংলাদেশে আগাম নির্বাচন হওয়া না হওয়ার বিশেষ যোগসূত্রতা আছে। দুর্ভাগ্যজনক হলেও এ রকম বাস্তবতাও এখন সত্য।

জানতে চাইলে এ প্রসঙ্গে সুজন (সুশাসনের জন্য নাগরিক) সম্পাদক ও রাজনৈতিক বিশ্লেষক ড. বদিউল আলম মজুমদার বলেন, প্রধানমন্ত্রী এরই মধ্যে তার দলের নেতাকর্মীদের নির্বাচনী প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। তার এই নির্দেশনা অবশ্যই গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনায় নিতে হবে। এখনই নেতাকর্মীদের নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলা কি আগাম নির্বাচনের সংকেত কিনা তা সময়ই বলে দেবে। তবে গরিব মানুষকে দশ টাকা কেজি দরে চাল দেয়া, তৃণমূল পর্যায়ে নেতাকর্মীদের সঙ্গে সম্পৃক্ত এমন একজন নেতাকে দলের সাধারণ সম্পাদক করা নিশ্চয়ই তাৎপর্যপূর্ণ।

তিনি আরও বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচন নিয়ে সরকারের মধ্যে এক ধরনের অস্বস্তি এখনও কাজ করছে। এই অস্বস্তি দূর করতে প্রয়োজন সব দলের অংশগ্রহণে একটি প্রতিযোগিতামূলক নির্বাচন। আওয়ামী লীগ এরই মধ্যে ঘোষণা দিয়েছে, তারা আরেকটি বিতর্কিত নির্বাচন চায় না। যদি তাই হয়, তাহলে আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু করার মধ্য দিয়ে তারা নিজেদের ভেতরকার অস্বস্তি দূর করতে পারে।

প্রসঙ্গত, দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি। বিএনপিসহ তাদের শরিকরা এই নির্বাচন বর্জন করে। জাতীয় পার্টির পাশাপাশি নির্বাচনে অংশ নেয় আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের শরীক দলগুলো। পাঁচ বছর মেয়াদি দশম জাতীয় সংসদের মেয়াদ শেষ হবে ২০১৯ সালের ৫ জানুয়ারি। সংবিধান অনুযায়ী ৫ জানুয়ারির আগের তিন মাসের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন।

উপরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০১৮ সালের ৫ অক্টোবর থেকে ২০১৯ সালের ৫ জানুয়ারির মধ্যে যে কোনো সময় একাদশতম জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু নির্বাচন নিয়ে এখন থেকে যে রকম মাতামাতি শুরু হয়ে গেছে তাতে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতো সাধারণ মানুষের অনেকে মনে করেন এর মধ্যে কোনো ‘কিন্তু’ আছে। সে কিন্তুকে অনেকে ধরে নিয়েছেন আগাম নির্বাচন। তবে সরকারের সাফ কথা নির্বাচন যথাসময়েই হবে।

এদিকে বিএনপি গেল ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে অংশ না নিলেও এবার তারা সে ঐতিহাসিক ভুল আর করতে চান না। এরই মধ্যে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের সদস্যরা নিশ্চিতভাবে আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেয়ার ব্যাপারে দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। সম্প্রতি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সামসুজ্জামান দুদু অফিসিয়ালি জানিয়ে দিয়েছেন বিএনপি অবশ্যই আগামী জাতীয় নির্বাচনে অংশ নেবে।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আরও দুই বছর বাকি। কিন্তু এরই মধ্যে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এই নির্বাচনে অংশ নেয়ার যাবতীয় প্রস্তুতি শুরু করেছে। মূলত গত ঈদুল ফিতরের আগেই প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা দলের নেতাকর্মীদের পরবর্তী নির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিতে বলেন। এজন্য দলীয় সংসদ সদস্যদের চলমান উন্নয়নমূলক প্রকল্প দ্রুত বাস্তবায়নে তদারক করার এবং নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় জনসম্পৃক্ততা বাড়াতে নির্দেশ দেন তিনি।

গত ২২ ও ২৩ অক্টোবর রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলনের মধ্য দিয়ে এই প্রস্তুতিকে আরও বেগবান করা হয়েছে। বিএনপিও থেমে নেই। ভেতরে ভেতরে জোরেশোরে নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু করেছে। নির্বাচনী ইশতেহার প্রণয়নের কাজেও হাত দিয়েছে। পাশাপাশি প্রার্থী বাছাইয়ের কাজও চলছে।

জানা গেছে, গত জুলাইয়ে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগের সংসদীয় দলের সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের সংসদ সদস্যদের নিজ নিজ নির্বাচনী এলাকায় গিয়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশ দেন। ওই বৈঠকে তিনি এলাকার জনগণের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়ানোর পাশাপাশি সরকারের উন্নয়নের প্রচার, চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড তুলে ধরা, সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে উঠান বৈঠক, বিরোধী পক্ষের কেউ যাতে মাঠ দখল করতে না পারে এবং সংসদ সদস্যদের নিজ এলাকায় কী ধরনের উন্নয়ন দরকার, তার নোট নেয়াসহ বেশ কিছু মৌখিক নির্দেশনা দেন শেখ হাসিনা।

দলের কোনো বিতর্কিত সংসদ সদস্যকে পরবর্তী নির্বাচনে মনোনয়ন দেয়া হবে না বলেও হুশিয়ারি করে দেন। সর্বশেষ দলের কেন্দ্রীয় সম্মেলনে নির্বাচন প্রস্তুতির বিষয়ে আরও সুস্পষ্ট করে দিকনির্দেশনা দেন।

এ প্রসঙ্গে আওয়ামী লীগের নবনির্বাচিত সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণ করার জন্য সম্প্রতি দলীয় নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, ‘নির্ধারিত সময় শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অধীনে আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। তাই নেতাকর্মীদের এখন থেকেই জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু করতে হবে।’

অন্যদিকে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, ‘বিএনপি গণতান্ত্রিক নির্বাচনমুখী একটি রাজনৈতিক দল। নির্বাচন করার মতো প্রস্তুতি আমাদের রয়েছে। আমরা চাই সব দলের অংশগ্রহণে একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক। এজন্য সরকারকে উদ্যোগ নিতে হবে।’

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ এ প্রসঙ্গে বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনের প্রস্তুতি নেয়ার জন্য দুই-আড়াই বছর খুব বেশি সময় নয়। এখন থেকে জনসংযোগ শুরু করলেও অনেক কাজ বাকি থেকে যাবে। তাই কেন্দ্র থেকে নির্বাচনী প্রস্তুতির ওপর জোর দেয়া হয়েছে।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, প্রস্তুতির দরকার নেই। আগামীকাল নির্বাচন হলেও বিএনপি ৩০০ আসনে প্রার্থী দিতে পারবে, প্রার্থী খোঁজা লাগবে না। মানুষ ভোট দিতে পারবে, এমন নির্বাচনে অংশ নেয়ার জন্য বিএনপি সব সময়ই প্রস্তুত।’

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা রক্ষায় ৫ জানুয়ারির নির্বাচন অপরিহার্য ছিল। অনেকের ধারণা ছিল এ নির্বাচনের পর যে সরকার গঠিত হবে তারা মেয়াদ পূরণ করতে পারবে না। এ অবস্থায় বিএনপিসহ সব দলের অংশগ্রহণে আরেকটি জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু নির্বাচনের কিছুদিনের মধ্যে মাঠে না নামা, বিলম্বে মাঠে নেমে পেট্রলবোমার ব্যর্থ আন্দোলন বিএনপিকে এক্ষেত্রে আরও পিছিয়ে দিয়েছে।

বিশেষ করে জামায়াত সঙ্গ ত্যাগ না করার বিষয়টি সাধারণ মানুষ ভালোভাবে নেয়নি। বিপরীতে সন্ত্রাস ও সহিংসতার বিরুদ্ধে শাসকদল আওয়ামী লীগের শক্ত অবস্থান গ্রহণ উন্নয়ন কার্যক্রমের কিছু রেকর্ড মানসিকভাবে আরও শক্তি জুগিয়েছে। যদিও এখন আওয়ামী লীগ মনে করছে শুধু উন্নয়ন দিয়ে হবে না। জনসমর্থনও বাড়াতে হবে। তাই দুই বছর আগেই দলটির সম্ভাব্য প্রার্থীদের জনসংযোগ বাড়াতে বলা হয়েছে।

সূত্র জানায়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন এবং এই নির্বাচনের ফলাফলও বাংলাদেশের ভবিষ্যৎ রাজনীতির গতিপথ পাল্টে দিতে পারে। হিলারি ক্লিনটন প্রেসিডেন্ট পদে জয়ী হলে কিছুটা হলেও মনস্তাত্ত্বিক চাপ পড়বে সরকারের ওপর। কারণ নোবেল বিজয়ী ড. ইউনূস হিলারির খুবই ঘনিষ্ঠ একজন বন্ধু। আর ড. ইউনূস বর্তমান সরকারের দ্বারা নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন।

এ সূত্রে বিএনপি ঘরানার শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে হিলারি পরিবারের বিশেষ কানেকশন রয়েছে বলেও অনেকে দাবি করেন। সব মিলিয়ে এই কারণ ও সূত্রগুলো একসঙ্গে মেলালে যে ফলাফলটা দাঁড়ায় তা হল হিলারি সরকার গঠন করলে আগাম নির্বাচনের বিষয়ে মার্কিন সরকারের পক্ষ থেকে নানাভাবে চাপ আসতে পারে।

এছাড়াও একটি গ্রহণযোগ্য নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য ইউরোপীয় ইউনিয়নসহ বিদেশী অনেক মহলের চাপ রয়েছে অনেক আগে থেকে। অনেকের মতে, এসব বিষয় বিবেচনায় ক্ষমতাসীনরা আগেভাগে নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু করেছে। আগাম নির্বাচন দিলেও যাতে বেগ পেতে না হয় সেজন্য জোরেশোরে আগাম প্রস্তুতিও নেয়া হচ্ছে।

অবশ্য এর আগে নির্বাচন কমিশন গঠনের কাজটিও শেষ করতে হবে। আওয়ামী লীগ এক্ষেত্রে নিজেদের পছন্দের লোক বসাতে চাইবে। আর তা হলে বাধা দেয়ার সব চেষ্টাই করবে। হতে পারে এ ইস্যুতেই রাজনীতির হালচাল পাল্টে যেতে পারে।

উল্লেখ করা যেতে পারে, আগামী ৮ ফেব্রুয়ারি বর্তমান নির্বাচন কমিশনের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের নেতৃত্বে চার সদস্যের কমিশন ২০১২ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি দায়িত্ব গ্রহণ করেন। পরে তাদের সঙ্গে আরও একজন যুক্ত হন।

এদিকে আওয়ামী লীগের দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানায়, পরবর্তী নির্বাচনে সম্ভাব্য দলীয় প্রার্থীদের তালিকা করার জন্য মাঠপর্যায়ে খোঁজখবর নিতে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। সংস্থাগুলোর মাধ্যমে বর্তমান সংসদ সদস্যদের জনপ্রিয়তা, নেতাকর্মীদের সঙ্গে তাদের যোগাযোগ, নানা অভিযোগ এবং দলে অবস্থান সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে। প্রতিটি আসনে অন্তত তিনজনের নাম দিয়ে তালিকা তৈরি করা হচ্ছে বলেও জানা গেছে। এ ছাড়া বিদেশী একটি জরিপ প্রতিষ্ঠানকেও মাঠের পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে প্রতিবেদন তৈরি করতে বলা হয়েছে। এ অবস্থায় সার্বিক পরিস্থিতি বিশ্লেষণ করে পর্যবেক্ষক মহলের অনেকে মনে করেন, আগাম নির্বাচনের যথেষ্ট সম্ভাবনা রয়েছে। এমনও হতে পারে, আগামী ৩ থেকে ৬ মাসের মধ্যে এ বিষয়ে ঘোষণা আসতে পারে।খবর যুগান্তরের।