মেইন ম্যেনু

আপনি আশাবাদী না নিরাশাগ্রস্ত? এই পরীক্ষাই বলে দেবে

hjkl

একটা সহজ রসিকতা বাজারে চালু রয়েছে, কোনও মানুষ আশাবাদী কিনা জানার জন্য তার সামনে আধ গ্লাস জল রাখা হলে তিনি যদি তার বর্ণনায় বলে ফেলেন— গ্লাসটা অর্ধেক ভরতি। তাহলে ধরে নিতে হবে তিনি অপটিমিস্ট। আর যদি তিনি বলেন— গ্লাসটা অর্ধেক খালি, তাহলে তিনি নির্যস পেসিমিস্ট। রসিকতা রসিকতাই। কোনও মনোবিদই এই টেস্টকে নম্বর দেবেন বলে মনে হয় না। একটা কথা সত্য, কোনও মানুষই স্থায়ীভাবে আশাবাদী বা নিরাশাগ্রস্ত হতে পারেন না। আশা-নিরাশা পর্যায়ক্রমে আসে জীবনে। কিন্তু কেউ যদি নেতিবাদী মানসিকতার শিকার হয়ে পড়েন, তাঁর মানসিকতার উদ্দীপনার অভাব দেখা দেওয়াটা স্বাভাবিক। সেক্ষেত্রে তাঁকে ‘হতাশ’ বা ‘নিরাশাগ্রস্ত’ বলা যায়। মনোবিদরা একটি সহজ পরীক্ষার দ্বারা বিষয়়টিকে বুঝতে চান। তাঁরা কোনও ব্যক্তি নিরাশাগ্রস্ত কি না, বোঝার জন্য কিছু প্রশ্ন তাঁর সামনে রাখেন।

প্রশ্নগুলি এই প্রকার—
১. রাস্তায় আপনি ১০০টাকার একটি নোট কুড়িয়ে পেলেন। আপনি কী ভাববেন?
ক. আমি খুবই ভাগ্যবান।
খ. আমার নজর খুব তীক্ষ্ণ।

আপনি কি ‘দলছুট’? কীভাবে বুঝবেন?
খোলা নারীশরীরকে মেয়েরাও উপভোগ করেন, বলছে গবেষণা
২. খুব কড়া ডায়েট চার্ট মেনে আপনি বেশ খানিকটা ওজন কমালেন। আপনি কী ভাববেন?
ক. ডায়েট খুবই কার্যকর, আগামী দিনে ওজন আরও কমাব।
খ. আমার চেষ্টায় কাজ হয়েছে, আমি চাইলেই ওজন কমাতে পারি।
৩. বন্ধুদের নিয়ে একটা পিকনিকের আয়োজন করছেন, কিন্তু হঠাৎ বৃষ্টি শুরু হল। আপনি কী ভাববেন?
ক. আর একটু ভাবনাচিন্তা করে পরিকল্পনা করা উচিত ছিল।
খ. কী আপদ! আগামী পিকনিকে এমনটা হবে না।
৪. আমনি কোনও ক্যুইজ জিতেছেন। আপনি কোনটা ভাববেন?
ক. মনে হয় আমার স্মৃতিশক্তি ভালই।
খ. ভাগ্যিস ক্যুইজে সেই সব প্রশ্ন এসেছিল। যেগুলো আমি জানতাম!
৫. মাসের শেষ। যাবতীয় বিল মেটাতে গিয়ে দেখছেন, আপনার হাতে তেমন টাকা নেই। কী ভাববেন এমন অবস্থায়?
ক. এই মাসটা ভাল গেল না। পরের মাসে সব ঠিক হয়ে যাবে।
খ. মানি-ম্যানেজমেন্ট ব্যাপারটা আমার আসে না।
উপরের প্রশ্নগুলির উত্তর যদি সর্বদা ‘ক’ হয়ে থাকে, আপনি নিশ্চিতভাবে আশাবাদী। আর ‘খ’ হলে নিরাশাগ্রস্ত। আশাবাদীরা আসলে ভাগ্য আর সাফল্যের মধ্যেকার ফাঁকগুলো জানেন। তাঁরা পরিশ্রমকে সম্মান করেন। পেসিমিজমের গোড়াতেই রয়েছে নিয়তি-নির্ভরতা। নিজের শ্রমের প্রতি আস্থাহীনতা।