মেইন ম্যেনু

‘আয়নাবাজি’র পাইরেসি নিয়ে যা বললেন চঞ্চল

‘অায়নাবাজি’র’ পাইরেসি নিয়ে কথা বলেছেন ওই ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করা অভিনেতা চঞ্চল চৌধুরী। ‘অায়নাবাজি’র ফেসবুক পেজে ফেসবুক লাইভে তিনি এ প্রসঙ্গে কথা বলেন।

পাইরেসিকে প্রশ্রয় না দিয়ে সিনেপ্রেমীদের হলে গিয়ে ‘আয়নাবাজি’ দেখার অনুরোধ করেন জনপ্রিয় এ তারকা।

চঞ্চল চৌধুরী বলেন, আমরাই আমাদের বন্ধু, আমরাই অামাদের শত্রু। এই খেলায় কে জিতবে, বন্ধু নাকি শত্রু? ভালো নাকি মন্দ, আসল নাকি নকল।

তিনি বলেন,‘আয়নাবাজি’র পাইরেসি হয়েছে। ফেসবুকের ওয়ালে কেউ কেউ শেয়ার করছেন, ট্যাগ করছেন। এটি খুবই দুঃখজনক। ‘আয়নাবাজি’ রিলিজ হওয়ার আগে ছিলো সেই টিমের সম্পত্তি, কিন্ত রিলিজ হওয়ার পরে ‘আয়নাবাজি’ সারাদেশের মানুষের সম্পত্তি। তাই এটা রক্ষা করার দায়িত্ব আমরা যারা সিনেমা করি, সিনেমার দর্শক তাদের।

দর্শকদের প্রতি অনুরোধ করে ‘মনপুরা’ খ্যাত এ অভিনেতা বলেন, আপনারা ফেসবুকের ওয়ালে দেওয়া পাইরেসিওয়ালা ‘আয়নাবাজি’ দেখবেন না। আপনারা হলে গিয়ে টিকেট কেটে দেখবেন। এখন দায়িত্ব আপনাদের। টিকেট কেটে যদি এখন আপনারা ‘আয়নাবাজি’ দেখেন তাহলে ‘আয়নাবাজি’ বাঁচবে, বাংলাদেশের সিনেমা বাঁচবে।

গত ২০ অক্টোবর বাংলা চলচ্চিত্রে রেকর্ড করা চলচ্চিত্র ‘আয়নাবাজি’ পাইরেসির কবলে পড়ে। মুঠোফোন সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান রবি টেলিভিশন-এ আপলোড করা হয় পুরো ছবিটি। এরপর অনলাইনে ফাঁস হয়ে যায় ছবিটি। এমনকি ফেসবুক লাইভেও চলে আসে ‘আয়নাবাজি’। বিষয়টি টের পেয়ে পরদিনই ছবিটি সরিয়ে নেয় কর্তৃপক্ষ।

এরপর অায়নাবাজির পাইরেসি বন্ধে সরব হয় নির্মাতাসহ মিডিয়ার অনেক গুণী তারকারা।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর মুক্তি পাওয়া অমিতাভ রেজার ‘আয়নাবাজি’ মাত্র দু’সপ্তাহে ঢুকে পড়েছে লাভের ঘরে। দুই সপ্তাহে ছবিটি আয় করেছে দুই কোটি ১৩ লাখ টাকা।