মেইন ম্যেনু

ইনফ্লামেশন কমান ঘরোয়া উপায়ে

antiinflametori-food

যদি আপনার মাথাব্যথা, পেট ফাঁপা, জয়েন্টের ব্যথা, র‍্যাশ, ক্লান্তি, ওজন বৃদ্ধি, অ্যালার্জি, অ্যাজমা অথবা মুডের সমস্যা হয়ে থাকে তাহলে বুঝতে হবে যে আপনার ইনফ্লামেশন বা প্রদাহের সমস্যা আছে। কখনো কখনো ইনফ্লামেশন নীরবে আসে এবং একে চিহ্নিত করাও কঠিন হয়। ডায়াবেটিস, হৃদরোগ, স্থূলতা, উচ্চ রক্তচাপ এবং ক্যান্সারের মত অসুখের মূল কারণ হচ্ছে ইনফ্লামেশন। ইনফ্লামেশন কমানোর অত্যন্ত সহায়ক কিছু উপায়ের কথাই জেনে নিব আজ।

১। সুপারফুড খান

আপনার শরীরের প্রদাহজনক অবস্থা কমাতে পারে কিছু খাবার। অনেক বেশি অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং পলিফেনল যুক্ত খাবার ফ্রি র‍্যাডিকেলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে পারে, যা ইনফ্লামেশনকে শান্ত করতে পারে। গ্রিনটি, ক্রুসিফেরি পরিবারের সবজি যেমন- ব্রোকলি, ফুলকপি ইত্যাদি খাবার ইনফ্লামেশনকে শান্ত করতে পারে। এছাড়াও ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড সমৃদ্ধ খাবার যেমন- বাদাম, বীজ ও তেল ইনফ্লামেশন কমতে সাহায্য করে। তাছাড়া আদা, রসুন, হলুদ, মরিচ এবং ব্লুবেরিও প্রদাহ কমতে সাহায্য করে।

২। ফ্রুক্টোজ, সাদা চিনি ও ময়দা বাদ দিন

সাদা চিনি ও পরিশোধিত শর্করা গ্লুকোজ এবং ইনসুলিন নিয়ন্ত্রণে বাঁধা দেয়ার মাধ্যমে ইনফ্লামেশনের বৃদ্ধিকে উৎসাহিত করে। যার ফলে অক্সিডেটিভ স্ট্রেস সৃষ্টি হয়। ইনসুলিন রেজিস্টেন্স হওয়ার কারণে ইনফ্লামেশন বৃদ্ধি পায়।

৩। সক্রিয় হোন

কোন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ছাড়াই ইনফ্লামেশন কমানোর একটি সহজ উপায় হচ্ছে ব্যায়াম করা। তবে ভারী ব্যায়াম করার পরে অবশ্যই বিশ্রাম নিতে হবে।

৪। ধূমপান বাদ দিন

ধূমপান রক্তনালীকে শক্ত করে এবং ইনফ্লামেশন বৃদ্ধি করে। ধূমপান বাদ দিতে পারলে আপনার ডায়েটের উপর ও নিয়ন্ত্রণ আনতে হবে যাতে অস্বাস্থ্যকর জাংক ফুডের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে না পড়েন।

৫। কোমরের মাপ স্বাভাবিক রাখুন

নারীদের কোমরের মাপ ৩৫ ইঞ্চির বেশি এবং পুরুষের কোমরের মাপ ৪০ ইঞ্চির বেশি হলে উচ্চ মাত্রার ইনফ্লামেশনে ভোগার সম্ভাবনা আছে। তাই তাদের ওজন কমানোর চেষ্টা করতে হবে।

৬। নেতিবাচক আবেগ দূর করতে হবে

উচ্চমাত্রার স্ট্রেস হরমোন অতিরিক্ত প্রদাহজনক রাসায়নিক নিঃসৃত করে। তাই মেডিটেশন, প্রার্থনা ইত্যাদির মাধ্যমে স্ট্রেস নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করুন। ইতিবাচক থাকার চেষ্টা করুন।

৭। পর্যাপ্ত ঘুম

পর্যাপ্ত ঘুমের অভাবে শরীর ইনফেকশন প্রবন হয়, যেখানে পর্যাপ্ত ঘুমের ফলে শরীরে অ্যান্টিইনফ্লামেটরি প্রভাব দেখা যায়। আটলান্টার ইমোরি ইউনিভার্সিটি স্কুল অফ মেডিসিন এর করা এক গবেষণায় দেখা যায় যে, সংক্ষিপ্ত ঘুম এবং ঘুমের মান খারাপ হওয়ার সাথে ইনফ্লামেশনের মাত্রা বৃদ্ধি পাওয়ার সম্পর্ক বিদ্যমান। তাই বলা যায় যে পর্যাপ্ত ও পরিপূর্ণ ঘুম ইনফ্লামেশন কমাতে সাহায্য করে।