মেইন ম্যেনু

ফিরে দেখা

ইসলামী ব্যাংক জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে জড়িত!

ইসলামী ব্যাংক

“ইসলামী ব্যাংক জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে জড়িত!” দেশের প্রথম শ্রেণির শীর্ষ পত্রিকা দৈনিক প্রথম আলোয় ৩১ আগস্ট’ ২০১৩সালে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ পায়। যেটা দৈনিক প্রথম আলোর অনলাইন ডেস্ক, তারিখ: ১৭-০৭-২০১২ থেকে সংগ্রহীত। সেই প্রতিবেদনটি সময়ের তাগিদে ও জনসচেতনতা বৃদ্ধিতে প্রকাশ করা বাঞ্চনীয় বলে পাঠকরা মনে করেন। পাঠকদের চাহিদা মেটাতে সেই খবরটি পুন:প্রকাশিত হলো-

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড ইসলামি জঙ্গি গোষ্ঠীকে সহায়তা করে আসছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সিনেটে পেশ করা একটি প্রতিবেদনে।
সিনেটের পার্মানেন্ট সাব-কমিটি অন ইনভেস্টিগেশনসের একটি প্রতিবেদনে আজ মঙ্গলবার বলা হয়েছে, বাংলাদেশের ইসলামী ব্যাংক ও সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক দীর্ঘদিন ধরে বিশ্বজুড়ে জঙ্গি তত্পরতার সঙ্গে পরোক্ষভাবে জড়িয়ে আছে।

অর্থ পাচার, মাদক ব্যবসা ও জঙ্গি তৎপরতা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জন্য কতটা হুমকির এবং অপরাধগুলোকে এইচএসবিসি ব্যাংক যেভাবে উত্সাহিত করেছে, তা নিয়ে তৈরি প্রতিবেদনে বলা হয়, সৌদি আরবের অন্যতম প্রধান ব্যাংক আল রাজি দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন ধরনের জঙ্গি তত্পরতায় ভূমিকা রেখে আসছে। আল রাজি ব্যাংক বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংকের এক-তৃতীয়াংশ শেয়ারের মালিক।

প্রতিবেদনে বলা হয়, এইচএসবিসি গ্রুপের মার্কিন ব্যাংক এইচবিইউএসে আল রাজি ব্যাংকের কয়েকটি অ্যাকাউন্ট ছিল। এসব অ্যাকাউন্টের জন্য আল রাজি এইচবিইউএসের কাছ থেকে বিশেষ সুবিধা পেয়ে আসছিল। এর বদৌলতেই আল রাজি বিপুল পরিমাণ নগদ ডলার বাংলাদেশ ইসলামী ব্যাংক ও সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকে পাঠিয়েছিল।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতি বছর ৭৫ হাজার থেকে এক লাখ ডলার জমা রাখবে, এমন আশ্বাস দিয়ে ব্যাংক দুটি এইচবিইউএসে হিসাব খোলে এবং একসময় মার্কিন অর্থ-ব্যবস্থার অংশ হয়ে যায়।

প্রতিবেদনের আরেক অংশে বলা হয়, ‘আল রাজি ব্যাংকের সঙ্গে কাজ করে ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড। এই ব্যাংকটি অর্থ পাচারের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ একটি দেশে কাজ করে। ইসলামী ব্যাংক এমন একজন ব্যক্তিকে হিসাব খোলার অনুমতি দিয়েছিল, যিনি বোমা হামলার মতো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত। অর্থ পাচারবিরোধী নীতি ভঙ্গ করে জঙ্গিদের সহায়তা করার দায়ে ব্যাংকটিকে এর আগে তিনবার জরিমানা দিতে হয়েছিল।’