মেইন ম্যেনু

এই অদ্ভুদ জীবটির রয়েছে ৪টি যৌনাঙ্গ! কোথায় কোথায় আছে জানলে রীতিমত অবাক হবেন

বছর কয়েক আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কিংস ক্যানিয়ন ন্যাশনাল পার্ক ও তার সংলগ্ন এলাকায় সমীক্ষা চালিয়ে কেভ বায়োলজিস্ট জঁ ক্রেইকা খুঁজে পেয়েছিলেন একটি কেন্নো-জাতীয় জীব। পরে স্পেসিমেন বিশ্লেষণ করতে গিয়ে দেখা যায় যে এই প্রজাতিটি একেবারেই নতুন। নতুন এই জীবের নাম ‘আই. টবিনি’। এর পরে ওই এলাকার আশেপাশে অনেক খুঁজেও আর একটি ওই প্রজাতির জীব খুঁজে পাননি বৈজ্ঞানিকরা। সম্প্রতি এই জীবটি সম্পর্কে বিশদ গবেষণা তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে অনলাইন জার্নাল জুকি-তে।

জানা গিয়েছে, ইয়ুকা পর্বতের একটি মার্বেল গুহা থেকে উদ্ধার করা এই জীবটির রয়েছে ৪১৪টি পা এবং তার শরীরে রয়েছে ২০০ পোরস। কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল এর পুং-অঙ্গ। গবেষকদের বক্তব্য অনুযায়ী, এই জীবটির চারটি পুং-অঙ্গ রয়েছে। কীভাবে? মাথা থেকে নবম ও দশম স্থানে অবস্থিত দু’জোড়া পা-ই পরিবর্তিত হয়েছে পেনিসে। কেন্নো-জাতীয় জীবের এই পুং-অঙ্গগুলিকে বলা হয় গনোপোড। এই অঙ্গগুলি ঢাকা রয়েছে স্পাইক বা স্পার্ম শাটলে। তবে এখনও পর্যন্ত এর স্ত্রী-প্রজাতির সন্ধান পাওয়া যায়নি।

এই ধরনের কেন্নো-জাতীয় জীব এর আগে পাওয়া গিয়েছে ভিয়েতনাম, দক্ষিণ আফ্রিকা, ভারত, ইন্দোনেশিয়া এবং মাদাগাস্কারে। কিন্তু উত্তর আমেরিকায় এই প্রজাতির আবিষ্কার এই প্রথম। বিজ্ঞানীদের ধারণা, সম্ভবত, প্লেট বিভাজনের আগেই উদ্ভব হয় এই প্রজাতির যখন পৃথিবীতে ছিল একটিই মাত্র সুপারকন্টিনেন্ট প্যানজিয়া। তার পরে সম্ভবত এই প্রজাতির একটি শাখা রয়ে যায় উত্তর আমেরিকায় এবং একটা সময় পরে এখানকার ভৌগোলিক পরিবেশের সঙ্গে হয়তো খাপ খাইয়ে নিতে না-পারার জন্যই ক্রমশ সংখ্যায় কমতে থাকে। হয়তো সেই কারণেই অনেক চেষ্টা করেও এর স্ত্রী-প্রজাতিটি খুঁজে পাননি এখনও বিজ্ঞানীরা। শুধু তাই নয়, এই জাতীয় আরও একটি পুং-জীবও পাওয়া যায়নি তন্নতন্ন করে খোঁজার পরেও।