মেইন ম্যেনু

‘এই কারণেই আমি রণবীরের ঠোঁটে চুমু খেতে চাইনি’-বলছেন ঐশ্বর্যা

‘অ্যায় দিল হ্যায় মুশকিল’ মুক্তি পাওয়ার আগে থেকেই নানা কারণে আলোচনার কেন্দ্রে এসে গিয়েছিল। রিলিজের পরে সিনেমায় ঐশ্বর্যা রাইকে রণবীর কপূরের সঙ্গে ঘনিষ্ঠ হতে দেখে চোখ কপালে তুলেছেন অনেকেই। অনেকেই বলছেন, এতটা সাহসী হবেন ঐশ্বর্যা, এমনটা আশা করেননি তাঁরা। কিন্তু অনেকে আবার অভিযোগ করছেন, রণবীর-ঐশ্বর্যার কেমিস্ট্রিটা আরও জমত যদি লিপ কিস করতে দেখা যেত দু’জনকে। ফিল্মে রণবীর-অ্যাশ একে অন্যের গালে চুমু খেয়েছেন। কিন্তু দু’জনের ঠোঁটকে মিলে যেতে দেখা যায়নি। শোনা যাচ্ছে, ঐশ্বর্যারই নাকি আপত্তি ছিল লিপ-কিসে। কিন্তু কেন আপত্তি করেছিলেন ঐশ্বর্যা? সম্প্রতি এক বিখ্যাত বিনোদন পত্রিকাকে দেওয়া এক দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে ঐশ্বর্যা ফাঁস করেছেন সেই রহস্য।

ঐশ্বর্যা জানিয়েছেন, ‘আমি কোনওদিনই ভাবনাচিন্তা না করে কোনও ফিল্মে অভিনয়ের ব্যাপারে সম্মতি জানাই না। আমি অত্যন্ত বুদ্ধিমতী অভিনেত্রী। এবং আমাকে কোনও দিনই আমার সহ অভিনেতা বা পরিচালকরা একজন নিউ কামার বলে মনে করেননি। আমার মতামতকে গুরুত্ব দিয়েছেন সকলেই।’

এরপর চুম্বন প্রসঙ্গে ঐশ্বর্যা বলেন, ‘‘ রুপোলি পর্দায় নিছক চুমুর জন্য চুমুতে আমার আপত্তি রয়েছে। ‘ব্রাইড অ্যান্ড প্রেজুডিস’-এর চিত্রনাট্যে একটা চুমুর দৃশ্য ছিল। কিন্তু আমার মনে হয়েছিল, চুমুটা এড়ানো যেতে পারে। সে কথা পরিচালক গুরিন্দর চড্ডাকে বলাতে ও বুঝতেও পারে আমার যুক্তিটা। ‘শব্দ’ ছবিতেও একই ঘটনা ঘটেছিল। শারীরিক ঘনিষ্ঠতা দেখানো হয়েছিল সেই ছবিতে, কিন্তু চুমু আমি খাইনি। কারণ আমি জানতাম, আমার একটা চুমুর দৃশ্য নিয়ে সারা দেশে কতখানি আলোচনা শুরু হবে।’’

কিন্তু ‘ধুম টু’তে হৃতিকের সঙ্গে তাঁর সেই বিখ্যাত চুমুর দৃশ্য? সেই নিয়ে কী বলছেন ঐশ্বর্যা ? ‘‘হ্যাঁ, ‘ধুম’-এ লিপ কিস-এ আমি সম্মত হয়েছিলাম। কারণ আমার মনে হয়েছিল, ততদিনে হিন্দি সিনেমার দর্শকরা হিন্দি ছবিতে চুমুকে অনেকটা মেনে নিতে পেরেছেন। তাছাড়া ‘ধুম’-এ নিছক চুমুর জন্য চুমু ছিল না। দৃশ্যটিতে আমার আর হৃতিকের মুখে বেশ কিছু সংলাপও ছিল। ফলে চুমুটাকে সেখানে চিত্রনাট্যের জন্য বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে হয়েছিল।’’ বলছেন ঐশ্বর্যা।

স্পষ্ট করে ‘অ্যায় দিল…’ প্রসঙ্গে কিছু না বললেও, পরোক্ষে ঐশ্বর্যা বলেই দিচ্ছেন যে, রণবীরের ঠোঁটে ঠোঁট রেখে চুমু খাওয়ার ব্যাপারটাকে তিনি চিত্রনাট্যের জন্য তেমন গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেননি। সেই কারণেই এড়িয়ে গিয়েছেন সেই ধরনের ঘনিষ্ঠতা। তাতে দর্শকরা কিঞ্চিৎ হতাশ হয়ে থাকতে পারেন, কিন্তু অভিনেত্রী হিসেবে নিজের নীতি থেকে সরতে হয়নি ঐশ্বর্যাকে।