মেইন ম্যেনু

এই বিশেষ শর্তটি না মানলে মোবাইল ফোন নিষিদ্ধ হবে আগামী ১ জুলাইয়ের পর

Pile of smart phones

ভারতে মোবাইল ফোন নির্মাণে ও বিক্রিতে বিশেষ শর্ত আরোপ করতে চলেছে সরকার। মোবাইল ফোনে দেশের প্রতিটি আঞ্চলিক ভাষার সাপোর্ট থাকা বাধ্যতামূলক করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জানানো হয়েছে, ২০১৭ সালের ১ জুলাইয়ের পরে যেসব মোবাইল আ়ঞ্চলিক ভাষাকে সাপোর্ট করবে না, সেগুলির উৎপাদন ও বিক্রিতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে।

সরকার মনে করছে, বহু ভাষা ও স্বল্প উচ্চশিক্ষার হার সম্পন্ন দেশ ভারতে যদি সবচেয়ে বেশি সংখ্যাক মানুষের কাছে মোবাইল পরিষেবা পৌঁছে দিতে হয়, তাহলে আ়়ঞ্চলিক ভাষার সাপোর্ট মোবাইলে থাকা অত্যন্ত জরুরি। বর্তমানে অধিকাংশ মোবাইলই শুধুমাত্র ইংরেজি ভাষাকে সাপোর্ট করে। অর্থাৎ শুধুমাত্র ইংরেজি ভাষায় নির্দেশ দিলেই মোবাইল তা বোঝে, এবং যাবতীয় নোটিফিকেশনও দেয় ইংরেজিতেই। এর ফলে যাঁরা ইংরেজি বোঝেন না, তাঁদের মোবাইল ফোন ব্যবহারে প্রতিবন্ধকতা দেখা দেয়।

এই প্রতিবন্ধকতাই দূর করতে উদ্যোগী হয়েছে সরকার। কিন্তু বিষয়টি পছন্দ নয় মোবাইল নির্মাতাদের। তাদের বক্তব্য, যদি সবকটি আঞ্চলিক ভাষা সাপোর্টেড মোবাইল সেট তৈরি করতে হয় তাহলে মোবাইলের দাম ১০ শতাংশ বাড়িয়ে দিতে হবে। কারণ আ়ঞ্চলিক ভাষার সাপোর্ট দিতে হলে ফোনের র‌্যাম বাড়াতে হবে, তেমনই ফোনের ডিজাইনেও কিছু পরিবর্তন আনতে হবে। স্বভাবতই মোবাইলের দামও বাড়বে। তাতে মোবাইলের বিক্রি কমে যাবে বলে আশঙ্কা কোম্পানিগুলির।

সরকার পক্ষের সঙ্গে বেশ কয়েকটি মিটিং হয়েছে মোবাইল কোম্পানিগুলির প্রতিনিধিদের। সেই মিটিং-এ নিজেদের অসুবিধার কথা সরকারকে জানিয়েছেন তাঁরা। অনুরোধ করেছেন যে, আ়ঞ্চলিক ভাষা সাপোর্ট স‌ংযোজনের শর্তটি আরোপ করার সময়সীমা যেন ১ জুলাই থেকে পিছিয়ে ১ জানু‌য়ারি, ২০১৮ করা হয়। কিন্তু এখনও পর্যন্ত সরকারি তরফে যা জানা যাচ্ছে, সরকার এই সময়সীমা পিছোতে রাজি নয়। মোবাইল কোম্পানি ও সরকারের দর কষাকষিতে শেষ পর্যন্ত কারা হার মানে, সেটাই এখন দেখার।