মেইন ম্যেনু

এক পিতা তার ৫১ জন সন্তান নিয়ে প্রথমবার কলকাতায় এসে একি করলো…

27

একজন, দু’জন নয়। নিউ আলিপুর থানার কনস্টেবল অরূপ মুখোপাধ্যায়ের সবমিলিয়ে ৫১ সন্তান। নটরাজ, সাধু, ববিতা বা পার্বতী শবররা এই প্রথমবার তাঁদের ‘বাবা’-র সঙ্গে কলকাতায় এসে ঠাকুর দেখল। দুর্গা ঠাকুরের সঙ্গে কলকাতাও প্রথমবার দেখল ওদের মধ্যে অনেকেই।

পুলিশের চাকরি করার সঙ্গে সঙ্গেই পুরুলিয়ার শবর জনজাতির বেশ কিছু ছেলেমেয়েদের দায়িত্ব নিজের হাতে তুলে নিয়েছেন অরূপবাবু। পুরুলিয়ায় শবর জনজাতির পরিবারগুলি আর্থিক এবং সামাজিক দিক থেকেও বরাবর পিছিয়ে থেকেছে। সেইরকম পরিবারের অনাথ এবং দুঃস্থ ছেলেমেয়েদের জন্য পুরুলিয়ায় একটি স্কুলও তৈরি করেছেন অরূপবাবু। নয় নয় করে সেখানে এখন ৫১জন ছাত্রছাত্রী রয়েছে।

কয়েকজন শুভানু্ধ্যায়ীর থেকে পাওয়া সাহায্য এবং নিজের চাকরির উপরে ভরসা করেই এই স্কুল চালাচ্ছেন অরূপবাবু। ছেলেমেয়েগুলির পড়াশোনা-সহ সমস্ত দায়িত্বই তিনি নিয়েছেন। ছোটবেলায় বাবা-মাকে হারানো এই ছেলেমেয়েগুলি অরূপবাবুকেই বাবা বলে ডাকে। নিজের এই সন্তানদেরই রবিবার কলকাতায় ঠাকুর দেখাতে নিয়ে এসেছিলেন অরূপবাবুর। নটরাজ, পার্বতীদের অধিকাংশই এই প্রথম কলকাতা দেখল।

তার সঙ্গে বাড়িত প্রাপ্তি দুর্গা পুজোর সময়ে কলকাতাকে দেখতে পাওয়া। নিউ আলিপুরের সুরুচি সংঘ, ‘ও’ ব্লক-এর মতো বেশ কয়েকটি পুজো মণ্ডপে ছেলেমেয়েগুলিকে নিয়ে ঘোরেন অরূপবাবু। ঠাকুর, মণ্ডপ, আলো, মানুষের ভিড় দেখে বেজায় খুশি পুরুলিয়া থেকে আসা কচিকাঁচারা। তার সঙ্গে বাড়তি প্রাপ্তি আইসক্রিম-সহ টুকটাক খাওয়া দাওয়া।

অরূপবাবু জানিয়েছেন, শিশুগুলির পড়াশোনা-সহ অন্যান্য খরচ মেটাতে কার্যত হিমশিম খান তিনি। পর্যাপ্ত আর্থিক সাহায্য পান না। তা সত্ত্বেও দুর্গাপুজোর আনন্দ থেকে ছেলেমেয়েগুলিকে বঞ্চিত করতে চান না বলেই তাদেরকে পুজোর সময় কলকাতা ঘুরিয়ে দেখানোর পরিকল্পনা করেন তিনি।