মেইন ম্যেনু

এফবিআইকে ব্যাখ্যা দিতে হবে : হিলারি

পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকার সময় যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের ই-মেইল ব্যবহার বিষয়ে নতুন করে তদন্তের নিন্দা জানানো হয়েছে।

সম্প্রতি দেশটির ফেডারেল তদন্ত ব্যুরোর (এফবিআই) পরিচালক জেমস কোমি কংগ্রেসকে চিঠিতে হিলারির ই-মেইল তদন্তের বিষয়টি জানিয়েছেন। নির্বাচনের আর মাত্র বাকি আছে ১১ দিন।

স্থানীয় সময় শনিবার ফ্লোরিডায় নির্বাচনী সমাবেশে হিলারি সমর্থকদের উদ্দেশে বলেন, ‘এফবিআইর এ সিদ্ধান্ত নজিরবিহীন ও অত্যন্ত পীড়াদায়ক।’

তবে প্রতিদ্বন্দ্বী রিপাবলিকান দল মনোনীত প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প এফবিআইর এ উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন।

কংগ্রেসকে পাঠানো চিঠিতে কোমি বলেছেন, নতুন যেসব ই-মেইল পাওয়া গেছে, তা আগেকার ব্যক্তিগত ই-মেইল সার্ভার ব্যবহারের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পারে। তিনি বলেন, বিষয়টি জনসমক্ষে না প্রকাশ না করলে বিভ্রান্তিকর হতো এবং ভুল বোঝার ঝুঁকি থাকত। তিনি এও বলেন, নতুন পাওয়া ই-মেইলের গুরুত্ব সম্পর্কে এফবিআইর ধারণা নেই।

ফ্লোরিডায় সমর্থকদের উদ্দেশে হিলারি বলেন, ‘এটা কেবল অদ্ভুতই নয়, নজিরবিহীনও। এবং খুব পীড়াদায়ক কারণ, ভোটাররা সম্পূর্ণ সত্য জানতে চায়।’ তিনি বলেন, ‘সে কারণে আমরা পরিচালক কোমিকে বলেছি, এখনই সবকিছুর ব্যাখ্যা দিতে হবে এবং আলোচনার টেবিলে সব নিয়ে আসুন।’

হিলারি বলেন, তিনি আত্মবিশ্বাসী যে তাঁর বিরুদ্ধে কোনো অপরাধ পাবে না এফবিআই।

গত জুলাই মাসে তাঁর বিরুদ্ধে ই-মেইল ব্যবহারের তদন্তে গুরুতর কিছু পায়নি সংস্থাটি। তবে এ জন্য হিলারির সমালোচনা শুনতে হয়েছে। প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার প্রশাসনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে থাকার সময় সরকারি কাজে তিনি ব্যক্তিগত ই-মেইল সার্ভার ব্যবহার করেছিলেন।