মেইন ম্যেনু

কঠিন পরীক্ষায় আর্জেন্টিনা, স্বস্তিতে ব্রাজিল

লাতিন আমেরিকা অংশের বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে বাংলাদেশ সময় বুধবার ভোরে আর্জেন্টিনা ও ব্রাজিল মাঠে নামছে যথাক্রমে কলম্বিয়া ও পেরুর বিপক্ষে। দক্ষিণ আমেরিকা মহাদেশের দেশ দুটি একে অপরের পাশাপাশি অবস্থান করলেও এই মুহূর্তে দুই শিবিরের পরিস্থিতি একেবারে বিপরীত।

লিওনেল মেসিকে ফিরিয়ে আনা হলেও আর্জেন্টিনা দলে প্রাণ ফেরাতে পারেননি তিনি। সর্বশেষ চার ম্যাচে কোনো জয় পায়নি আকাশী-নীলরা। আর তাই কলম্বিয়ার ম্যাচটি তাদের জন্য ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াই। প্রতিযোগিতায় টিকে থাকরও। অন্যদিকে দীর্ঘদিন খারাপ সময় কাটিয়ে চলমান বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে অন্যরূপে ফিরেছে ব্রাজিল। একের পর এক জয় তুলে নিজেদের নিয়ে গেছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে। বিশ্বকাপ বাছাইয়ে নিজেদের সর্বশেষ ম্যাচে চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী আর্জেন্টিনাকে নিজেদের মাটিতে ৩-০ গোলে হারানোটাই ছিল তাদের সাম্প্রতিককালের সবচেয়ে বড় অর্জন। সে কারণে পেরুর মাঠে টিটের শিষ্যরা থাকছে অনেকটাই নির্ভার।

বুধবার কলম্বিয়ার বিপক্ষেই বিশ্বকাপ বাছাইয়ে মেসিরা চলতি বছরের শেষ ম্যাচটি খেলছে যেটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় ভোর ৫টায়। বর্তমান পরিস্থিতি যাই থাকুক পরিসংখ্যান রয়েছে আর্জেন্টাইনদের পক্ষেই। এগার্ডো বাউজার শিষ্যদের বিপক্ষে সর্বশেষ ৫ ম্যাচের একটিতেও জয়ের দেখা পায়নি কলম্বিয়া। তিনটিতে জয় পায় আর্জেন্টিনা। বাকি দুটিতে ড্র হয়। গত বছরের নভেম্বরে সর্বশেষ ম্যাচে মুখোমুখি হয়েছিল দল দুটি যেখানে ০-১ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছিল আর্জেন্টাইনরা।

অন্যদিকে বর্তমানে উড়ন্ত ব্রাজিলের রয়েছে বুধবারের প্রতিপক্ষ পেরুর বিপক্ষে বিষাদময় অতীত। শতবর্ষী কোপা আমেরিকায় এই দলটির বিপক্ষে হেরেই বাদ পড়েছিল নেইমারের দল। তবে সব মিলিয়ে শেষ পাঁচবারের লড়াইয়ে একটি পরাজয় ও একটি ড্রয়ের সঙ্গে তিনটি জয় রয়েছে সেলেকাওদের।

দক্ষিণ আমেরিকা অংশের বিশ্বকাপ বাছাই পর্বে খেলছে মোট ১০টি দল। এগুলোর মধ্যে ২০১৮ সালের বিশ্বকাপে অংশ নেয়ার দৌড়ে বর্তমানে সবচেয়ে এগিয়ে আছে ব্রাজিল। ১১ ম্যাচে তাদের অর্জন ২৪ পয়েন্ট। এক পয়েন্ট কম নিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে উরুগুয়ে। এরপর ধারাবাহিকভাবে রয়েছে কলম্বিয়া (১৮), ইকুয়েডর (১৭) ও চিলি (১৭)। অন্যদিকে ১১ ম্যাচে চার জয়, চার ড্র ও তিন পরাজয় নিয়ে দুবার বিশ্বকাপ জয়ী দল আর্জেন্টিনার অবস্থান ষষ্ঠ।