মেইন ম্যেনু

কাল থেকে বেরোবিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু : অনিয়ম ঠেকাতে কঠোর অবস্থান

এইচ.এম নুর আলম, বেরোবি প্রতিনিধি : রংপুরের বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে (বেরোবি) আগামীকা রোববার থেকে শুরু হচ্ছে ১ম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা। বিগত বছরগুলোতে ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতির তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়ে এবারও অনিয়ম ঠেকাতে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে প্রশাসন। আগামী ১৩ থেকে ১৭ নভেম্বর পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে অনুষ্ঠিতব্য এই ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি প্রতিরোধে ভ্রাম্যমাণ আদালতের পাশাপাশি গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর কড়া নজর থাকবে।

গত বছর ভর্তি পরীক্ষায় মোট ২১ জন পরীক্ষার্থীর বিরুদ্ধে ওঠা জালিয়াতির অভিযোগের প্রমাণ পায় তদন্ত কমিটি। দীর্ঘ পাঁচ মাস তদন্ত শেষে তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি প্রতিবেদন জমা দিলে জড়িতদের শাস্তি প্রদান করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বিগত বছরগুলোর এমন তিক্ত অভিজ্ঞতার আলোকে সম্ভাব্য সব জালিয়াতি রুখতে সর্বোচ্চ কৌশল অবলম্বনে বদ্ধপরিকর রয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। ভর্তি পরীক্ষাকে কেন্দ্র করে পুরো ক্যাম্পাসে কয়েক স্তরবিশিষ্ট নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলা হবে, পুলিশ র্যাবের পাশাপাশি কাজ করবে গোয়েন্দা সংস্থা।

এছাড়াও ভর্তি পরীক্ষা চলাকালে ১২-১৭ নভেম্বর বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলো বন্ধ ঘোষণা করে ক্যাম্পাসে প্রবেশে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। ক্যাম্পাসে নিষিদ্ধ করা হয়েছে ভর্তি পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ব্যতীত অন্যান্যদের প্রবেশ। ওই সময় কেবল প্রবেশপত্র দেখানোর মাধ্যমই ভর্তি পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে। পরীক্ষার্থীদের কেন্দ্রে আসার সময় দুই কপি রঙিন প্রবেশপত্রের নির্ধারিত স্থানে স্বাক্ষর এবং পাসপোর্ট আকারের দু’কপি রঙিন ছবি আঠা দিয়ে লাগিয়ে সঙ্গে আনতে হবে। সেই সঙ্গে অবশ্যই এইচএসসি বা সমমানের মূল রেজিস্ট্রেশন কার্ড সঙ্গে আনতে হবে।

পরীক্ষার কক্ষে মোবাইল ফোনসহ যেকোনো ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস (ক্যালকুলেটর, ঘড়ি, হেডফোন) ব্যবহার নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর (চলতি দায়িত্ব) শাহীনুর রহমান বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় যেকোনো বিশৃঙ্খলা ও জালিয়াতির চেষ্টা কঠোরভাবে দমন করা হবে। এ ব্যাপারে তিনি সবার সহযোগিতা কামনা করেন।

সার্বিক বিষয়ে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. একেএম নূর-উন-নবী বলেন, ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি ও অসদুপায় অবলম্বনকারীদের বিরুদ্ধে তাত্ক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য এবারও পরীক্ষা চলাকালে ভ্রাম্যমাণ আদালত কাজ করবেন। প্রশাসনের সব সংস্থার সঙ্গে আমরা বৈঠক করেছি, তারা সর্বদা নিয়োজিত থাকবে।