মেইন ম্যেনু

কিশোরীর নগ্ন ছবি দেখার আবদার বন্ধুর, উত্তরে মেয়েটি পাঠাল এক অবিশ্বাস্য ছবি

29

সোশ্যাল মিডিয়ায় তো এমনটা কতই ঘটে। কোনও এক কিশোরী বা তরুণীকে অনলাইন দেখে তার ইনবক্সে কোনও এক অশোভন প্রস্তাব দিয়ে বসে তার কোনও এক স্বল্পচেনা কিংবা একেবারে অচেনা এক পুরুষ বন্ধু। তার উত্তরে মেয়েটি কী করে? হয় এড়িয়ে যায় সেই প্রস্তাব, কিংবা সেই অশোভন প্রস্তাবকারীকে ব্লক করে দিয়ে ভবিষ্যতে এই ধরনের মেসেজের রাস্তা বন্ধ করে দেয়। কিন্তু মাত্র ১৬ বছরের রিজ হাবার্ট যা করেছে এই জাতীয় অশালীন প্রস্তাবের উত্তরে, তা রীতিমতো দৃষ্টান্ত হয়ে থাকতে পারে।

রিজ থাকে আমেরিকার হিউস্টনে। স্কুলে পড়ে সে। দিন কয়েক আগে সে যখন স্নান করছে, তখনই তার স্কুলের এক সহপাঠী তাকে টুইটারে মেসেজ করে জানতে চায়, রিজ কী করছে? রিজ জানায়, সে স্নানরতা। সঙ্গে সঙ্গে আসে প্রস্তাব, ‘তোমার স্নান করার একটা ছবি পাঠাও না, প্লিজ।’

রিজ জানিয়েছে, ছেলেটি তার স্কুলে পড়ে ঠিকই, কিন্তু ছেলেটির সঙ্গে তেমন ভালো আলাপ নেই তার। সেই সহপাঠীর কাছ থেকে এহেন প্রস্তাব পেয়ে যথেষ্ট ক্ষুণ্ণ হয় রিজ। সে ঠিক করে এর যোগ্য জবাব দিতে হবে।
সংবাদমাধ্যমকে সে জানিয়েছে, ‘যে কেউ যা খুশি দেখতে চাইবে, আর আমি অম্নি সেটা পাঠিয়ে দেব, আমি সেরকম মেয়েই নই।’ কিন্তু সহপাঠীর ওই প্রস্তাবের উত্তরে চুপ করে বসে থাকার মেয়েও সে ছিল না। সে একটা ছবি সত্যিই পাঠিয়ে দেয় ওই ছেলেটিকে। সেটা তার স্নানেরই ছবি বটে। কিন্তু যেমন ছবি ওই ছেলেটি দেখতে চেয়েছিল, সেরকম ছবি আদৌ নয়।

কয়েকদিন আগে অনলাইন শপিং মারফৎ একটি মাথায় লাগানো ছাতা কিনেছিল রিজ। সে করে কী, ছাতাটি মাথায় লাগিয়ে শাওয়ারের নীচে দাঁড়িয়ে একটি সেলফি তোলে। ছবিটিতে কেবল তার গলা পর্যন্ত দেখা যাচ্ছে। তারপর সেই ছবি পাঠিয়ে দেয় ছেলেটিকে।

image-2

রিজের পাঠানো সেই ছবি, আর সহপাঠীর সঙ্গে তার সেই কথোপথন
ছেলেটি বলা বাহুল্য খুশি হয়নি। কিন্তু রিজের এই ছবি ভাইরাল হয়ে গিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। অন্য টুইটার গ্রাহকরা ভয়ানক খুশি হয়েছেন রিজের এহেন উত্তরে। সকলেরই বক্তব্য, কত শান্তভাবে এবং ব্যতিক্রমী উপায়ে ছেলেদের অশালীন প্রস্তাবের মোকাবিলা করা যায়, তা দেখিয়ে দিয়েছে রিজ। হাজার হাজার শেয়ার হয়েছে রিজের এই ছবি। শুধু তাই নয়, রিজের কায়দায় মাথায় ছাতা লাগিয়ে ছবি তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করছেন রিজের ফলোয়াররা।

রিজের বক্তব্য, ‘আমার বন্ধুরা বলছে, আমি নাকি টুইটারে দারুণ ফেমাস হয়ে গিয়েছি।’ আর রিজের সেই সহপাঠী, যার জন্য এতকিছু, সে কিছু বলেছে রিজের এই জনপ্রিয়তায়? রিজ হাসতে হাসতে জানাল, ‘সে আমাকে আর তারপর থেকে কোনও মেসেজই করেনি।’