মেইন ম্যেনু

কোন দেশের চাকরিজীবীরা সবচেয়ে বেশি কাজ করেন?

142337man-working

এশিয়া, কানাডা, আমেরিকা এবং মেক্সিকোর চাকরিজীবীরা অফিসে প্রচুর কাজ করেন। এখানকার কর্মীরা সবচেয়ে বেশি ছুটি বঞ্চিত বলে মনে করা হয়। নতুন এক প্রতিবেদন এসব তথ্য দেওয়া হয়।

এক্সপিডিয়া ভ্যাকেশন ডেপ্রিভেশন রিপোর্টে দেখানো হয়েছে, কোন দেশের মানুষরা সবচেয়ে বেশি কাজ করেন। তবে ১২ বছর আগে প্রতিষ্ঠার পর থেকে এই ভ্রমণ বিষয়ক ওয়েবসাইট একই রিপোর্ট প্রকাশ করেছিল। সেই রিপোর্টের সঙ্গে বর্তমানের তেমন কোনো পার্থক্য নেই।

বিগত বছরগুলোতে বলা হয়, দক্ষিণ কোরিয়ার মানুষ বছরে ১৫ দিন ছুটি পান। কিন্তু গড়ে মানুষ ৮ দিন ছুটি গ্রহণ করেন। ২৮টি দেশের ওপর জরিপ চালিয়ে এ তথ্য দেওয়া হয়।

উত্তর আমেরিকানরা পেশা ও ব্যক্তিগত জীবনের মাঝে তেমন ভারসাম্য স্থাপন করতে পারেন না। যদি আমেরিকানরা বিগত বছরগুলোতে ১৫ দিন করে ছুটি ভোগ করেছেন। গড়ে মানুষ ১২ দিন ছুটি ভোগ করেন। ২০১৬ সালে ৩৭৫ মিলিয়ন ডলারের পেইড ভ্যাকেশনের হিসাব মেলে।

এক্সপিডিয়া ডট কমের ভাইস প্রেসিডেন্ট জন মোরে জানান, পেশা ও ব্যক্তিগত জীবনের মধ্যে ভারসাম্য স্থাপনের জন্য বছরে ছুটির হিসাব করা হয়। বিভিন্ন জরিপে বলা হয়, নিয়মিত ছুটি কর্মীদের সুস্বাস্থ্য ও ভালো থাকার জন্য দরকার। এর ব্যবহারে অনেকে ভারসাম্য স্থাপন করতে পারেন। কিন্তু অনেকেই তা করতে পারেন না।

এর কারণ কি হতে পারে যে তারা ছুটির সদ্ব্যবহার করেন না? উত্তর আমেরিকার ৯ শতাংশ কর্মী মনে করেন, বছরে সবগুলো ছুটি নেওয়াকে চাকরিদাতা ভালো চোখে দেখেন না। আর ১৪ শতাংশ কর্মী জানান, সব ছুটি নিতে নিজের কাছেই খারাপ লাগে।

কিন্তু অনেক দেশের চিত্রটা ভিন্ন। স্পেন, ফিনল্যান্ড, আরব আমিরাত এবং ফ্রান্সে বছরে ৩০ দিন ছুটি রয়েছে এবং সবগুলো গ্রহণ করেন কর্মীরা। এসব দেশের ৬৮ শতাংশ মনে করেন, এই ছুটিগুলোও তাদের জন্য যথেষ্ট নয়। তাদের ছুটি বঞ্চিত করা হয়।

ফ্রান্সের চাকরিজীবীরা মনে করেন, বছরে ৪০ দিন ছুটি থাকা উচিত। দুই সপ্তাহ তারা অ্যালকোহল এবং সোশাল মিডিয়াতে সময় দেন। এ ছাড়া টেলিভিশন দেখা এবং কফিশপেও সময় কাটান। হংকং, ভারত, ইউএই এবং দক্ষিণ কোরিয়ার কর্মীরা ছুটির দিন একবার হলেও অফিস-সংক্রান্ত ই-মেইলগুলো দেখেন। আমেরিকানরা নিজেদের ছুটি বঞ্চিত বলেই মনে করেন।

এখানে ২০১৬ সালের তালিকা দেখে নিন। এ দেশের কর্মীরা সবচেয়ে বেশি কাজ করেন। অর্থাৎ, ছুটি সবচেয়ে কম নেন। এখানে গড় হিসাবটি দেখানো হলো।

১. দক্ষিণ কোরিয়া- ৮ দিন।
২. আমেরিকা, থাইল্যান্ড, মেক্সিকো, মালয়েশিয়া- ১২ দিন।
৩. কানাডা, সিঙ্গাপুর, হংকং- ১৪ দিন।
৪. অস্ট্রেলিয়া, ভারত- ১৫ দিন।

এবার দেখুন সেই দেশগুলো যারা সবচেয়ে বেশি ছুটি ভোগ করেন।
১. ফ্রান্স, ব্রাজিল, ফিনল্যান্ড, স্পেন, সংযুক্ত আরব আমিরাত- ৩০ দিন।
২. জার্মানি- ২৮ দিন।
৩. ইতালি, অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক, নরওয়ে, সুইডেন, সুইজারল্যান্ড, যুক্তরাজ্য- ২৫ দিন।

সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস