মেইন ম্যেনু

ক্যান্সারকে হারিয়েছেন এই বাঙালি অভিনেত্রী, এখন কী করছেন জানেন?

লিজা রায়। বলিউডপ্রেমীদের কাছে খুবই পরিচিত নাম। কিন্তু, কতজন জানেন যে লিজার সঙ্গে কলকাতার গভীর যোগ আছে? আসলে লিজার বাবা বাঙালি এবং খোদ কলকাতার শ্যামবাজারের বাসিন্দা। আর মা পোলিশ।
কানাডায় বড় হলেও লিজা বরাবরই ভারতের গ্ল্যামার ইন্ডাস্ট্রির সঙ্গে জড়িত। একটা সময় ‘বম্বে ডাইং’-এর মডেল ছিলেন। পরবর্তীকালে বলিউডে বেশ কয়েকটি ছবিতে নায়িকাও বনেছিলেন লিজা। ইন্দো-কানাডিয়ান উদ্যোগে তৈরি ‘ওয়াটার’ সিনেমাতেও অভিনয় করেছিলেন লিজা। এই ছবিটি অস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছিল।

ক্যান্সার লিজার কেরিয়ারকে প্রশ্নের সামনে ঝুলিয়ে দিয়েছিল। একটা সময় মারণরোগের দাপটে জীবনের আশাই ছেড়ে দিয়েছিলেন লিজা। কেমোথেরাপি নিতে নিতে শরীরটা লঝ্‌ঝড়ে হয়ে গিয়েছিল তাঁর। সুন্দরী লিজা তাঁর নিজের চেহারা নিজেই আয়নায় দেখে আঁতকে উঠতেন। কিন্তু, লড়াকু লিজা হাল ছাড়েননি।

একদিন তিনি পাল্টা মনের জোর তৈরি করতে সমর্থ হন। আজ সুস্থ হয়ে উঠেছেন লিজা। ক্যান্সারের জীবাণুর সংক্রমণকে প্রতিরোধ করা গিয়েছে। সুস্থ লিজা সম্প্রতি জানিয়েওছিলেন ভাল অফার পেলে ফের বলিউড ছবিতে অভিনয় করবেন। বাঙালি মেয়ে হয়ে বাংলা ছবি করবেন না? সত্যজিৎ রায়ের ভক্ত লিজা ‘পথের পাঁচালি’ বহুবারই দেখেছেন এবং অবশ্যই সাবটাইটেল ছাড়া। কিন্তু, এখনও পর্যন্ত বাংলা ছবির কোনও অফার তাঁর কাছে নেই।

লিজা এখন কানাডায় স্বামীর সঙ্গে রয়েছেন। সংসারের দায়িত্ব সামলানোর ফাঁকে তৈরি করেছেন, ‘ক্যান্সার প্রতিরোধ সংস্থা’। এই সংস্থার কাজ হল ক্যান্সার আক্রান্তদের পাশে দাঁড়ানো। এর জন্য এখন অর্থ সংগ্রহ করছেন লিজা রায়। এই উদ্যোগে সম্প্রতি তাঁর কিছু ফ্যাশনদুরস্ত ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রকাশ করেছেন। আর সেই ছবিতে লিজার নয়া রূপ এবং গ্ল্যামার দেখে সকলেই মোহিত। ক্যানসার রোগকে প্রতিরোধ করে লিজা নাকি আরও বেশি সুন্দরী হয়ে উঠেছেন। ৪৪ বছরের লিজাকে নাকি ২০ বছরের তরুণীর মতো লাগছে। তবে, ক্যান্সার আক্রান্তদের পাশে দাঁড়াতে লিজা যেভাবে কাজ করছেন তাঁকে কুর্নিশ জানাচ্ছেন সকলে।