মেইন ম্যেনু

খুশকি দূর করুন প্রাকৃতিক উপায়ে

নিঃসন্দেহে খুশকি মাথার তালুর একটি সাধারণ ও বিরক্তিকর সমস্যা। মাথার তালুর তেলের উৎপাদন বৃদ্ধি পেলে, অ্যালার্জি, স্ট্রেস এবং ফাঙ্গাস ইনফেকশনের কারণে হতে পারে খুশকি। কিছু ঘরোয়া উপাদান ব্যবহার করেই খুশকির সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। খুশকি দূর করার প্রাকৃতিক কিছু উপায় জেনে নিই চলুন।

১। লেবু

খুশকির বিরুদ্ধে যুদ্ধ করতে সাহায্য করে লেবু। একটি লেবুর রস বের করে নিয়ে মাথার তালুতে ঘষে ঘষে লাগান দুই মিনিট যাবৎ। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। লেবুর অম্লীয় উপাদান খুশকি দূর করবে এবং চুলকে উজ্জ্বল হতে সাহায্য করবে।

২। বীট

খুশকি দূর করার আরেকটি চমৎকার উপাদান হচ্ছে বীট ফল। বীট মূল কেটে পানিতে সিদ্ধ করে নিন। এই মিশ্রণে বিটের চেয়ে পানির পরিমাণ ৩ গুণ বেশি হবে। এই পানি প্রতিদিন রাতে মাথার তালুতে ম্যাসাজ করুন।

৩। অ্যাসপিরিন

মেডিকেটেড ড্যান্ড্রাফ শ্যাম্পুতে যে সক্রিয় উপাদানটি (সেলিসাইলিক এসিড) থাকে তা অ্যাসপিরিনেও থাকে। ২ টি অ্যাসপিরিন ট্যাবলেট ভালো করে গুঁড়া করে আপনি সাধারণ যে শ্যাম্পু ব্যবহার করেন তার সাথে মিশিয়ে চুলে লাগিয়ে ১-২ মিনিট রাখুন। তারপর ভালো করে ধুয়ে ফেলুন এবং পুনরায় শুধু শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন।

৪। টি ট্রি অয়েল

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, শ্যাম্পুর সাথে ৫ শতাংশ টি ট্রি অয়েল মিশিয়ে ব্যবহার করলে খুশকির সমস্যা দূর হয়। আপনার প্রিয় শ্যাম্পুর সাথে কয়েক ফোঁটা টি ট্রি অয়েল মিশিয়ে স্বাভাবিক ভাবে চুল ধুয়ে ফেলুন।

৫। বেকিং সোডা

খুশকি দূর করার জন্য বেকিং সোডা কার্যকরী ভূমিকা রাখে। আপনার চুল ভিজিয়ে নিন। একমুঠো বেকিং সোডা মাথার তালুতে ঘষুন। তারপর পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। খুশকি সৃষ্টিকারী অতিসক্রিয় ছত্রাক কমতে সাহায্য করবে বেকিংসোডা। এতে হয়তো আপনার চুল কিছুটা শুষ্ক হয়ে যাবে, কিন্তু কয়েক সপ্তাহ পর মাথার তালুতে তেল উৎপাদন হবে। যার ফলে আপনার চুল নরম হবে ও মরা চামড়া উঠা বন্ধ হবে।

৬। মাউথ ওয়াশ

খুশকি থেকে মুক্ত হওয়ার জন্য শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। তারপর অ্যালকোহল ভিত্তিক মাউথ ওয়াশ দিয়ে চুল ধুয়ে নিন। মাউথ ওয়াশের ছত্রাকরোধী উপাদান খুশকি সৃষ্টিকারী ইষ্টের বৃদ্ধি প্রতিহত করে।