মেইন ম্যেনু

চাঁদা চাইতে গিয়ে গণধোলাই খেল পুলিশের এসআই

নেত্রকোণার কলমাকান্দায় চাঁদা চাইতে গিয়ে গণধোলাইয়ের শিকার হয়েছেন পুলিশের এক উপ-পরিদর্শক (এসআই)। উত্তেজিত জনতা তার সঙ্গে থাকা মোটরসাইকেল ভাংচুর করে এবং গায়ের কাপড় ছিড়ে ফেলে। এ সময় তিনি সরকারি হাতকড়া ফেলে রেখে দৌড়ে পালিয়ে যান।

বুধবার দুপুরে উপজেলার ডাইয়ারকান্দা বাজারে এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয়রা জানান, কলমাকান্দা থানার এএসআই মো. ইমরুল কায়েস এসআই হাবিবুরের সঙ্গে রংছাতি ইউনিয়নের ডাইয়ারকান্দা বাজারে গিয়ে আবু বক্করের চায়ের দোকানে ঢোকে। সেখানে স্থানীয় পাথর ব্যবসায়ী মো. নূরুল ইসলামের ছেলে আল আমীনসহ কয়েকজন বসে কথা বলছিলেন। এসময় এসআই ইমরুল কায়েস আল আমীনকে ডেকে নিয়ে তার কাছে ২০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেন। আল আমীন টাকা এনে দেওয়ার কথা বলে বিষয়টি এলাকাবাসীকে জানায়। এতে জনতা ক্ষিপ্ত হয়ে ইমরুলের ওপর চড়াও হয় এবং তাকে বেধরক মারপিট করে শরীরে থাকা কাপড় ছিড়ে ফেলে এবং মোটরসাইকেলটিও ভাংচুর করে। এ সময় ইমরুল দৌড়ে পালিয়ে নিজেকে রক্ষা করেন।

আল আমীনের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি জানান, বাজারে চায়ের দোকানে বসে চা খাওয়ার সময় এসআই ইমরুল তাকে ডেকে নিয়ে তার বিরুদ্ধে জুয়া খেলার অভিযোগ আনে। তখন ২০ হাজার টাকা দাবি করে। না হলে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যাওয়ার ভয় দেখায়।

কলমাকান্দা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, ইমরুল ওই এলাকায় শমন নিয়ে যাচ্ছিল। এসময় ডাইয়ারকান্দা বাজারে আল-আমীনকে মোবাইল ফোনে তীর কাউন্টার (জুয়া) খেলতে দেখে। তখন তাকে আটক করে থানায় নিয়া আসতে চাইলে জনতা বাধা দেয় এবং ইমরুলকে মারধর করে।

ঘটনাটি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে, তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত কোনো মামলা হয়নি বলেও জানান তিনি।