মেইন ম্যেনু

চোখ ওঠা রোগে কী করবেন?

ডা. শাকিল মাহমুদ : চোখ যে শুধু মনের কথা বলে তা নয়, চোখ আপনার রোগের কথাও বলে। চোখের সাদা অংশটি লালচে হলে, চোখ দিয়ে পানি পড়লে, প্রদাহ হলে তাকে চোখ ওঠা বা কনজাংটিভাইটিস বলে। সময়মতো চিকিৎসা না নিলে কর্নিয়ায় ঘা, কর্নিয়া ছিদ্র হয়ে চোখ অন্ধ হয়ে যেতে পারে। বাচ্চাদের ও বড়দের চোখ ওঠা বা কনজাংটিভাইটিস শীতকালে বেশি দেখা দেয়। তাই আসন্ন শীতে চোখ ওঠা বা কনজাংটিভাইটিস থেকে বাঁচতে এখনই চাই বাড়তি সতর্কতা।

চোখ ওঠার লক্ষণ ও উপসর্গ
১. চোখের সাদা অংশ লাল হয়ে যাওয়া;

২. চোখের পাতা ফুলে যাওয়া;

৩. চোখ দিয়ে পানি পড়া;

৪. চোখে জ্বালাপোড়া করা;

৫. চোখে হলুদ, সাদা রঙের ময়লা জমা;

৬. ঘুম হতে ওঠার পর চোখের দুই পাতা একসঙ্গে লেগে থাকা;

৭. হালকা জ্বরসহ মাথাব্যথা।

কীভাবে চোখ উঠার জীবাণু ছড়ায়
১. চোখ ওঠা খুবই ছোঁয়াচে রোগ। সাধারণত ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণে এটি হয়। অপরিষ্কার হাত, আক্রান্ত ব্যক্তির স্পর্শে, আক্রান্ত ব্যক্তির তোয়ালে, গামছা ব্যবহারে চোখ উঠতে পারে।

২. অ্যালার্জি ধুলাবালির মাধ্যমে;

৩. চোখের কসমেটিকস ব্যবহারে চোখ উঠতে পারে।

চিকিৎসা 
যেসব কারণে চোখ ওঠে, সেসব বিষয় থেকে দূরে থাকতে হবে।

১. হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে চোখ পরিষ্কার রাখতে হবে এবং চোখের পাতাগুলো খোলা রাখতে হবে।

২. চোখে কালো চশমা পরতে পারেন।

৩. পর্যাপ্ত বিশ্রাম ও ভিটামিনযুক্ত খাবার খান।

৪. ব্যক্তিগত পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার নিয়ম মেনে চলুন।

কখন চিকিৎসকের কাছে যাবেন
১. যখন আপনার চোখ থেকে ঘন হলুদ কিংবা সবুজাভ হলুদ রঙের ময়লা পদার্থ বের হয়;

২. চোখ ব্যথা থাকলে;

৩. চোখে ঝাপসা দেখতে পেলে  অথবা দেখতে সমস্যা হলে;

৪. রোদে গেলে কিংবা কোনো অ্যালার্জিক বস্তুর জন্য চোখে অসুবিধা অনুভব করলে;

৫. চোখের  সাদা অংশ ফুলে উঠলে কিংবা লাল হয়ে গেলে।

যা করবেন না 
১. কোনো  চিকিৎসকের অনুমতি ছাড়া চোখের ড্রপ ও ওষুধ ব্যবহার করা যাবে না।

প্রতিকার 
১. চোখ ওঠা খুবই ছোঁয়াচে রোগ। পরিবারের একজনের থেকে অন্যজনের হতে পারে। সুতরাং এসব ক্ষেত্রে রোগ প্রতিরোধের জন্য পরিবারের সবাই কাপড়, তোয়ালে ও অন্যান্য জিনিস আলাদা ব্যবহার করুন।

২. চোখে হাত দেবেন না;

৩. ঘন ঘন  সাবান দিয়ে হাত ভালোমতো পরিষ্কার করুন;

৪. যেসব জিনিসে অ্যালার্জিক তা থেকে  দূরে থাকুন;

৫. আক্রান্ত হলে ঘরে বিশ্রাম নিন।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক, গণস্বাস্থ্য সমাজভিত্তিক মেডিকেল কলেজ, সাভার, ঢাকা।