মেইন ম্যেনু

টনসিল অস্ত্রোপচার করলে গলার স্বর নষ্ট হয়ে যায়?

ডা. সজল আশফাক : অনেকের গলাতেই টনসিলের সমস্যা দেখা দিয়ে থাকে। টনসিলের এই সমস্যাকে বেশি ভয় করেন আবৃত্তি কিংবা সংগীতশিল্পীরা। টনসিলের যে সমস্যা সাধারণত দেখা দেয় তা হচ্ছে, টনসিলাইটিস বা টনসিলের প্রদাহ।

টনসিলাইটিস হলে রোগীর গলায় ব্যথা হবে। খাবার খেতে কষ্ট হবে এবং জ্বর থাকবে। এ ছাড়া চিকিৎসক টনসিল পর্যবেক্ষণের মাধ্যমে নির্ধারণ করবেন, টনসিলাইটিস হয়েছে কি না। তেমনটি না হলে দুশ্চিন্তার কারণ নেই। এ ব্যাপারে চিকিৎসকের পরামর্শমতো ব্যবস্থা নিলেই পরিত্রাণ পাওয়া যেতে পারে।

তবে বারবার টনসিলাইটিস হতে থাকলে সে ক্ষেত্রে টনসিলেকটমি অপারেশনের মাধ্যমে, অর্থাৎ টনসিল কেটে ফেলে দেওয়াই হচ্ছে চিকিৎসা। এ ক্ষেত্রে অনেকে ভয় ও অবহেলাবশত অপারেশন করাতে চান না।

বিশেষ করে কণ্ঠশিল্পীদের মধ্যে এ রকম একটি ভ্রান্ত ধারণা প্রচলিত আছে। তাঁরা ভাবেন, টনসিল ফেলে দিলে গলার স্বর স্বাভাবিক থাকবে না। এ রকম ধারণা যাঁরা পোষণ করেন, তাঁদের উদ্দেশে বলতে চাই—এসব ধারণার কোনোটিই সত্য নয়।

নির্দেশনা অনুযায়ী টনসিল অস্ত্রোপচার করার দরকার পড়লে সেটি করে ফেলাই ভালো; বরং অস্ত্রোপচার না করলে সে ক্ষেত্রে অসুবিধা হতে পারে। আর টনসিলের সঙ্গে গলার স্বর সৃষ্টির কোনো সম্পর্ক নেই বলে টনসিল ফেলে দেওয়ার সঙ্গে গলার স্বর নষ্ট হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। তবে টনসিল বড় হওয়ার কারণে গলার যে স্বর ধীরে ধীরে তৈরি হয়, অস্ত্রোপচার না করলে সে ক্ষেত্রে অসুবিধা হতে পারে।

আর টনসিলের সঙ্গে গলার স্বর নষ্ট হওয়ার প্রশ্নই ওঠে না। তবে টনসিল বড় না হয়ে স্বাভাবিক থাকলে যে ধরনের স্বর তৈরি হতো, অস্ত্রোপচারের পর বরং স্বরটা সে রকম স্বাভাবিকতার দিকেই পরিবর্তিত হয়।

এটা কাঙ্ক্ষিত স্বরধ্বনি বা গলা স্বাভাবিক থাকলে যে ধরনের স্বর তৈরি হতো, অপারেশনের পর বরং স্বরটা সে রকম স্বাভাবিক স্বর। গলার স্বর তৈরিতে ন্যস্ত অঙ্গটির নাম ভোকাল কর্ড। এই ভোকাল কর্ডের অসুস্থতার সঙ্গে গলার স্বর পরিবর্তনের সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে।

তবে টনসিল বড় হলেই তা ফেলে দিতে হবে, এমন ধারণাও ঠিক নয়। কারণ, টনসিল শরীর থেকে বাদ দেওয়ার আগে অবশ্যই নাক কান গলা বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের মতামত নিতে হবে।

শেষে আবারও বলছি, টনসিল যেহেতু গলার স্বর তৈরি করে না, তাই টনসিলের সঙ্গে গলার স্বর নষ্ট হওয়ার সম্পর্ক নেই।

লেখক : সহযোগী অধ্যাপক, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ।