মেইন ম্যেনু

ট্রাম্পের সাবেক স্ত্রী চেক রিপাবলিকে রাষ্ট্রদূত হতে চান

১৯৯২ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে ডাইভোর্স হয়ে যায় ইভানা ট্রাম্পের। তারপর থেকে তিনি ব্যস্ত ছিলেন, রিয়ালিটি শো, বই লেখা ও উৎসাহব্যঞ্জক বেশ কিছু উদ্যোগে সঙ্গে। কিন্তু এখন ইভানা তার সাবেক স্বামী অর্থাৎ যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্টের কাছে চেক রিপাবলিকে রাষ্ট্রদূত হওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন।

৬৭ বছরের ইভানা ১৯৪৯ সালে চেক রিপাবলিকেই জন্মগ্রহণ করেন। তখন দেশটি চেকোসেøাভাকিয়া নামে পরিচিত ছিল। নিউইয়ক পোস্টকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে ইভানা জানান, ট্রাম্পের উচিত তাকে চেক রিপাবলিকে রাষ্ট্রদূত করে পাঠানো। চেক তার দেশ এবং তিনি তার দেশের ভাষা ভালভাবেই জানেন।

ইভানা আরো বলেন, যে তিনটি বই তিনি লিখেছেন তা ২৫টি ভাষায় অনুবাদ হয়ে ৪০টি দেশে জনপ্রিয়তা পেয়েছে। সবাই আমাকে ইভানা নামে চেনে, আমার সাবেক স্বামী ট্রাম্পের নামে নয়। তবে ট্রাম্প তাকে রাষ্ট্রদূত করতে চাইলে তিনি তাতে রাজি হবেন।

ইতিমধ্যে নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প তার পরিবারের অনেক সদস্যকেই বিভিন্ন পদ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছেন। চেক রিপাবলিকে বর্তমানে মার্কিন রাষ্ট্রদূত রয়েছেন এ্যান্ডি চ্যাপরিও যিনি ২০১৪ সালের আগস্ট থেকে দেশটিতে দায়িত্ব পালন করছেন। ১৯৯৩ সালে চেকোসেøাভাকিয়া চেক রিপাবলিকে রুপান্তরিত হলে যুক্তরাষ্ট্র সেখানে রাষ্ট্রদূত পাঠায়। এনডিটিভি