মেইন ম্যেনু

দলত্যাগী সাত নেতাকে বহিষ্কার করলো ইনুর জাসদ

666

জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের সব পদ-পদবী ও দায়দায়িত্ব থেকে সাত নেতাকে অব্যাহতি দেয়ার কথা জানিয়ে গণমাধ্যমে বিজ্ঞপ্তি পাঠিয়েছে হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বে থাকা কমিটি। বৃহস্পতিবার বিকালে গণমাধ্যমে এই বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়।

তবে তারা যাদেরকে বহিষ্কার করেছেন, তারা আগেই জাসদ থেকে বের হয়ে আলাদা কমিটি গঠন করেছে। তারা ইনুর নেতৃত্বে কমিটির এই সিদ্ধান্তকে হাস্যকর বলেছেন।

গত মার্চে জাসদের সম্মেলনে কমিটি গঠন নিয়ে বিরোধের জেরে আম্বিয়ার নেতৃত্বে দলের একটি অংশ ইনুর নেতৃত্বকে অস্বীকার করে বের হয়ে আসেন। পরে আম্বিয়াকে সভাপতি করে ঘোষণা করা হয় জাসদের আরও একটি কমিটি।

সেই থেকে জাসদের দুইটি কমিটিই সমান্তরালভাবে সংগঠনের কার্যক্রম চালিয়ে আসছে। আর দলটির জাসদের নির্বাচনী প্রতীক মশাল চেয়ে নির্বাচন কমিশনে আবেদনও করে আম্বিয়ার নেতৃত্বে থাকা কমিটি। জাসদের ছয় সংসদ সদস্যের মধ্যে চারজনই আম্বিয়ার নেতৃত্বে কমিটিতে রয়েছেন। আর ইনুর নেতৃত্বে কমিটিতে সংসদ সদস্য হিসেবে তিনি নিজে ছাড়া আছেন কেবল শিরিন আক্তার।

গত ফেব্রুয়ারিতে দলে ভাঙন ধরার পর ঐক্য প্রক্রিয়া শুরুর চেষ্টার কথা জানায় ইনুর নেতৃত্বে থাকা কমিটির নেতারা। দল থেকে সরে যাওয়া নেতাদেরকে ইনুর নেতৃত্বে কমিটিতে রাখাও হয়েছিল এর অংশ হিসেবেই। তবে গত সাত মাসে ঐক্য প্রক্রিয়ায় কোনো অগ্রগতি হয়নি।

এরপর জাসদ কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির চতুর্থ সাধারণ সভা বিকালে দল থেকে বের হয়ে আলাদা কমিটি করা সাত নেতাকে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়।

এই বৈঠকে দলের দলীয় সভাপতি হাসানুল হক ইনুর সভাপতিত্বে রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক প্রস্তাবনা উপস্থাপন করেন দলের সাধারণ সম্পাদক শিরীন আখতার। গণমাধ্যমে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘গত ১২ মার্চ অনুষ্ঠিত দলের কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের দিন থেকে ধারাবাহিকভাবে দলের শৃংখলা বিরোধী কর্মকাণ্ড পরিচালনা করার সুনির্দিষ্ট অভিযোগে অভিযুক্ত কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটির সহ-সভাপতি ইন্দু নন্দন দত্ত, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান, সাংগঠনিক সম্পাদক মঞ্জুর আহমেদ মঞ্জু, সাংগঠনিক সম্পাদক করিম সিকদার, সদস্য শরীফ নূরুল আম্বিয়া, সদস্য মইনউদ্দিন খান বাদল ও সদস্য মুশতাক হোসেনকে দলের সকল পদ-পদবী ও দায়দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি প্রধান করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।’

এই বিজ্ঞপ্তির বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে জাসদের অপর অংশের সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া বলেন, ‘আমরা তো তাদের সঙ্গে নেই। আমাদের দল আলাদা। তাহলে আমাদেরকে তারা বহিষ্কার করা বা না করার সিদ্ধান্তে কী যায় আসে?’

আম্বিয়া বলেন, ‘আমরা বের হয়ে আসার পরও তার (ইনু) দলের গ্রহণযোগ্যতা বাড়াতে আমাদেরকে রাখা হয়েছিল। কিন্তু আমরা তাদের আহ্বানে সাড়া দেইনি। এখন তারা যেটা করেছে, সেটা তামাশা।’



« (পূর্বের সংবাদ)