মেইন ম্যেনু

দুর্গাপুরে সন্ত্রাসী হামলায় আহত নজরুল মড়লের দ্বিতীয় সংবাদ সম্মেলন

durgapur-19

দুর্গাপুর (নেত্রকোনা) প্রতিনিধি : নেত্রকোনায় দুর্গাপুরে গত ১৫নভেম্বর সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় আবারও সংবাদ সম্মেলন করলেন হামলায় আক্রান্ত পৌর যুবলীগের সভাপতি নজরুল ইসলাম মোড়ল।

দুর্গাপুর প্রেসক্লাব মিলনায়তনে শনিবার সন্ধ্যায় লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, কুখ্যাত সন্ত্রাসী মাজহারুল ইসলাম তাঁর সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে প্রকাশ্য দিবালোকে ব্যাস্ততম নাজিরপুর রোড় মোড়ে পিস্তল সহ দেশীয় অস্ত্রসস্ত্র নিয়ে আমি সহ একাধীক ব্যাক্তিকে আহত করে। এছাড়া আলাল সর্দার একজন হত্যা মামলার আসামী বলে অভিযোগে উল্লেখ করে বলেন, আমি গত ১৫নভেম্বর সন্ত্রাসী হামলার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছিলাম। পরদিন এই সন্ত্রাসীবাহিনী তাঁদের লোক দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে পলাতক আসামী আলাল সর্দার এর পক্ষে আহাজ সর্দার পাল্টা একটি সংবাদ সম্মেলন করে যাহা সম্পুর্ন মিথ্যা, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। মুলত আমার দায়েরকৃত মামলা থেকে প্রতিপক্ষদের অব্যাহতির জন্য একটি মিথ্যা প্রচেষ্টা। আমার জানামতে মাজহারুল ইসলাম যুবলীগের কোন সদস্য নয়, সে একটি চিহ্নিত সন্ত্রাসী, তাঁর বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী ঘটনা সহ চুরি ছিনতাইয়ের একাধিক মামলা রয়েছে। তাঁর চাচা আব্দুস ছালাম পৌর মেয়র নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে মাজহারুল তাঁর চাচার প্ররোচনায় আরো বেপরোয়া হয়ে পড়ে। গত সোমবার এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে মাজহারুল গংদের বিরুদ্ধে দুর্গাপুর থানায় একটি মামলা করা হয়, যাহার মামলা নং- ০৯। মামলা হওয়ার পরেও এই বাহিনী আমার বিরুদ্ধে নানা ভাবে চক্রান্ত করে চলেছে। ন্বাধীন সভ্য দেশে আমি ভদ্রভাবে জীবন যাপন সহ মানসম্মান নিয়ে সন্ত্রাসী বাহিনীর কারনে আতংকের মধ্যে আছি। আমি অবিলম্বে মামলার আসামী মাজহারুল গংদের গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তি দাবী করছি। আমার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনে যে ৬জনের নাম ব্যাবহার করা হয়েছে এদের মধ্যে মেয়র আব্দুস ছালাম ও বিরিশিরি ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম রুহু ছাড়া অন্যান্য ৪জন কিছ্ইু জানেন না বলেও উল্লেখ করা হয়। আমার জানামতে তাঁদের নাম ব্যাবহার করে একটা জগন্য মিথ্যাচারে আমাকে রাজনৈতিক ভাবে হেয় করার চেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। আমি প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠ তদন্তপুর্বক এর প্রতিকার দাবী করছি। সংবাদ সম্মেলনের অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ ভাইস চেয়ারম্যান পারভীন আক্তার, আহত ব্যবসায়ী হযরত আলী ও রিপনদে সহ প্রত্যক্ষদর্শী ব্যাবসায়ীবৃন্দ।