মেইন ম্যেনু

দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা যায় না : অর্থমন্ত্রী

দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা যায় না। যারা দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে সংসদ সদস্য এবং মন্ত্রী হয়েছেন তাদের বিরুদ্ধে কেউ যদি মামলা করে তাহলে তাদের এমপি পদ ও মন্ত্রিত্ব বাতিল হয়ে যাবে বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত।

মঙ্গলবার অর্থমন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে যুক্তরাজ্য প্রবাসীর সঙ্গে বৈঠকে তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের সভাপতি সুলতান মোহাম্মদ শরিফ, সহ-সভাপতি আলহাজ্ব এম এ রহিম ও সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাইদুর রহমান ফারুক প্রমুখ। সভায় প্রবাসীরা বিভিন্ন দাবি দাওয়া তুলে ধরার প্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী এমন মন্তব্য করেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আমার কাছে মনে হয় ভোট প্রদানের ব্যবস্থা ও ন্যাশনাল আইডি কার্ড সহজেই করে দিতে পারি। কিন্তু এখনো যে আইন তাতে এ ডুয়েল সিটিজেন ক্যান নট হোল্ড ইন ইলেকটেড পোস্ট। এটা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’

তবে এ বিষয়ে প্রবাসীরা জানান, কয়েকজন দ্বৈত নাগরিক বর্তমানে ও অতীতে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এ কথার প্রেক্ষিতে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘একটা নাম বলেন? কে আছেন? একজন আবু সাঈদ সাহেবের ছেলে ছিলো সে রিজাইন করে দিয়েছিলো।’

যুক্তরাজ্যের আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলহাজ্ব এম এ রহিম বলেন, ‘আমরা জানি মোসাদ্দেকুর রহমান চৌধুরী, আব্দুস সামাদ কয়েস চৌধুরী, মিলন, আশরাফ ব্রিটিশ পাশপোর্ট ছিলো, ড. সেলিম, নবীগঞ্জের সুজাত প্রবাসী ছিলেন। বর্তমান সংসদের হুইপ জাতীয় পার্টির সেলিম সে ইংল্যান্ডের, ইয়াহিয়া সে ইংল্যান্ডের, নবীগঞ্জের যিনি বর্তমান এমপি তিনিও ইংল্যান্ডের। এখনো এ রকম অনেকে বর্তমান পার্লামেন্টে আছে।’

এ সব কথা শোনার পর অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা কেউ যদি তাদের বিরুদ্ধে একটা মামলা করেন ইমেডিয়েটলি ডু উইলি বি আউট।’

সংবিধানের ৭ এর ২ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী দ্বৈত নাগরিকত্ব নিয়ে বাংলাদেশের নির্বাচন করা যায় না বলেও জানান তিনি।