মেইন ম্যেনু

নোটবাতিল প্রথম পদক্ষেপ, এর পরে কী কী?

sdfghj

নোটবাতিল করেই চুপ করে থাকতে চাইছেন না নরেন্দ্র মোদী। আরও অনেক দূর এগোতে চাইছেন। তাঁর নোট বাতিলের সিদ্ধান্ত নিয়ে দেশজুড়ে চলছে হইচই। তুঙ্গে উঠেছে বিরোধিতা। তারই মধ্যে রবিবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জানিয়ে দিলেন, ঠিক কেমন ভারত চাইছেন তিনি।

রবিবার ২৬তম ‘মন কি বাত’ অনুষ্ঠানে জাতির উদ্দেশে ভাষণে মোদী জানিয়েছেন, তিনি ভারতে ‘ক্যাশলেস ইকোনমি’ তৈরি করতে চান। তবে আপাতত তিনি যে পদক্ষেপ করেছেন তাতে ‘লেস-ক্যাশ সোসাইটি’ গড়া সম্ভব। আগামী দিনে তিনি যে দেশে নগদ বিনিময় বন্ধ করে দিতে চান, সেটাও এ দিন স্পষ্ট করে দিয়েছেন তিনি। তবে আপাতত তাঁর বক্তব্য থেকে একটি বিষয় স্পষ্ট যে, এখন যেমন ব্যাঙ্ক থেকে নগদ টাকা তোলায় নিয়ন্ত্রণ রয়েছে তেমনটা আগামী দিনেও থাকতে পারে।

এক নজরে দেখে নেওয়া যাক ঠিক কী কী বলেছেন প্রধানমন্ত্রী—

• আমি জানি আপনাদের কত সমস্যা হচ্ছে কিন্তু গত ৭০ বছর ধরে যে অসুখ ছড়িয়েছে তার চিকিৎসা খুব সহজ নয়। নোটবাতিল ইস্যুতে মানুষকে বিপথগামী করার চেষ্টা চলছে, কিন্তু সাধারণ মানুষ উন্নততর ভারতের জন্য কষ্ট স্বীকার করছেন।

• দুর্নীতিগ্রস্তদের থামানো কঠিন, তারা এখনও কালো টাকা বাঁচানোর পথ খুঁজে চলেছে। কিন্তু যেটা দুঃখের, ওরা গরিব মানুষকে ব্যবহার করছে।

• দেশের ব্যবসায়ী ভাই বোনেদের কাছে আমি আবেদন রাখতে চাই, এই সুযোগে তাঁরা যেন ‘ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড’-এ প্রবেশ করেন।

• রুপে কার্ড ব্যবহার ৩০০ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। গরিব মানুষেরাও এটা শুরু করেছেন। এটা একটা হোয়াটসঅ্যাপ মেসেজ পাঠানোর মতোই সহজ কাজ।

• সকলেই নগদ লেনদেনহীন সমাজ তৈরির জন্য পদক্ষেপ করুন। এখন অনেক প্রযুক্তি এসে গিয়েছে যা নিরাপদ এবং সুরক্ষিত।

• যুব সমাজের কাছে আমার আবেদন, তাঁরা যেন নগদ লেনদেনহীন সমাজ গঠনের জন্য এগিয়ে আসেন এবং ভারতকে দুর্নীতি ও কালোটাকার অভিশাপ থেকে মুক্তি দেন।

• শ্রমিক তাঁর প্রাপ্য মজুরি পান না। কাগজে যা লিখিয়ে নেওয়া হয়, তার কম পান। ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট হলে তাঁরা আর প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত হবেন না।